kalerkantho


সিলেটের মেয়রকে বরখাস্তের আদেশ হাইকোর্টে স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক ও সিলেট আফিস   

১৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে মেয়র হিসেবে তাঁর দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না করতে এবং কোনো হয়রানি না করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকারসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, সিলেট মহানগর পুলিশ কমিশনারসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ আদেশ দেন। সাময়িক বরখাস্তের আদেশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে আরিফুল হকের করা এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে এ আদেশ দেন আদালত। আরিফুল হকের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন ও ব্যারিস্টার আবদুল হালিম কাফি। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।

অন্তর্বর্তীকালীন আদেশের পাশাপাশি রুল জারি করেন আদালত। রুলে মেয়র পদ থেকে আরিফুল হক চৌধুরীকে বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার বিভাগের আদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকারসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, সিলেট জেলা প্রশাসক, সিলেট বিভাগীয় পুলিশ কমিশনার, মহানগর পুলিশ কমিশনারসহ সংশ্লিষ্টদের চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আরিফুল হক চৌধুরী ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরানকে হারিয়ে সিলেটের মেয়র নির্বাচিত হন।

তবে কারাগারে আটক থাকাবস্থায় ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি মেয়র পদ থেকে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদরের বৈদ্যের বাজারে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া। এ মামলায় প্রথম দফায় দেওয়া অভিযোগপত্রে আরিফুলের নাম ছিল না। তবে সংশোধিত সম্পূরক অভিযোগপত্রে মেয়র আরিফুলকে আসামি করা হয়। এরপর ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর মেয়র আরিফুলসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। পরে ওই বছরের ৩০ ডিসেম্বর আরিফুল বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। আদালত তা নাকচ করে তাঁকে কারাগারে পাঠান। এরপর তাঁকে মেয়দ পদ থেকে বরখাস্ত করে সরকার। এ অবস্থায় উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে গত ৪ জানুয়ারি কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি।


মন্তব্য