kalerkantho


জঙ্গিবাদ ভবিষ্যতের জন্য অশনিসংকেত : রাষ্ট্রপতি

নাসরুল আনোয়ার ও শফিক আদনান, ইটনা (কিশোরগঞ্জ) থেকে   

১৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



জঙ্গিবাদ ভবিষ্যতের জন্য অশনিসংকেত : রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ গতকাল কিশোরগঞ্জের ইটনার মহেশচন্দ্র বিদ্যানিকেতন পরিদর্শন করেন। ছবি : পিআইডি

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, ‘জঙ্গিবাদ কেবল এখন বাংলাদেশের নয়, সারা বিশ্বেরই একটি সমস্যা। আমাদের দেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। কিন্তু এ দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান হয়েছে। এতে শিক্ষিতরাও জড়িত হয়ে পড়ছে। এটা দেশের ভবিষ্যতের জন্য অশনিসংকেত। এ প্রজন্মের যুবকরা যেন বিপথগামী না হয়, এদিকটায় অভিভাবকদের আরো সচেতন হতে হবে। ’ গতকাল সোমবার বিকেলে রাষ্ট্রপতি ইটনায় ‘রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজে’র ২০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ-বিপক্ষ শক্তিকে চিনতে হবে। সততা, মূল্যবোধ ও ন্যায়বিচার হৃদয়ে ধারণ করতে হবে। সৃজনশীল ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে শিক্ষিত ও সংস্কৃতিবান জনগোষ্ঠী গড়ে উঠলে এরাই এ দেশকে দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলবে।

শিক্ষার্থীদের প্রতিযোগিতা করেই এগিয়ে যেতে হবে এবং দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে হবে। ’

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘গণতন্ত্রের একটি অপরিহার্য অংশ হচ্ছে নির্বাচন। একটি সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচনের আয়োজনে নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব পালন করে। কিন্তু জনগণের দায়িত্বও কম না। জনগণকেও সঠিক রায় দিতে হবে। অর্থের বিনিময়ে ভোট বিক্রির মাধ্যমে রায় দেওয়াকে প্রকৃত গণতন্ত্র বলে না। এতে গণতন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ’

রাষ্ট্রপতি বিগত জেলা পরিষদ নির্বাচনের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘আমি ঢাকায় বসেই নির্বাচনে টাকার ছড়াছড়ির কথা শুনেছি। এটা কী ধরনের কথা! টাকার বিনিময়ে ভোট কিনে যাঁরা সেবা দিতে চান, তাঁদের উদ্দেশ্য ভালো নয়। ’

কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিকের সভাপতিত্বে ওই সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন কিশোরগঞ্জ-৫ (বাজিতপুর-নিকলী) আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মো. আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো. সোহরাব উদ্দিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান, কলেজের অধ্যক্ষ মো. ইসলাম উদ্দিন, ইটনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘বঙ্গভবনে বসেও আমি প্রতি মুহূর্তে হাওরবাসীর কষ্ট ও সংগ্রাম অনুভব করি। ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে হাওরে বড় বড় প্রকল্প গ্রহণ করা কঠিন। তার পরও নিরন্তর হাওরের উন্নয়নের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। ’

জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘যেসব জনপ্রতিনিধি টাকা খেয়ে তদবির করেন, ক্ষমতার অপব্যবহার করেন; আপনাদের এমপিও যদি টাকা নিয়ে কাজ করেন—তাঁকেও ভোট দেওয়ার কথা আমি বলি না। ’

সংসদ সদস্য মো. আফজাল হোসেন সমাবেশে বলেন, ‘হাওরবাসীর শুকরিয়া আদায় করা উচিত। কারণ হাওরে ১০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়নকাজ চলছে। ১০০ এমপির পক্ষে যা সম্ভব নয়, হাওরবাসীর জন্য রাষ্ট্রপতি একাই তা করছেন। ’ অনুষ্ঠানের সভাপতি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘ভাটি এলাকা এখন প্রায় শহরের কাছাকাছি চলে গেছে। তবে কিছু সমস্যা রয়েই গেছে। ইটনার জনতাগঞ্জ বাজার ও শিমুলবাগ বিলীন হওয়ার পথে। ’

দুপুর দেড়টার দিকে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি কিশোরগঞ্জের ইটনা সদর হেলিপ্যাডে অবতরণ করে। এরপর ইটনা জেলা পরিষদ ডাকবাংলোর সামনে রাষ্ট্রপতিকে যথারীতি গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। পরে তিনি ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রামের মধ্যে সংযোগ স্থাপনকারী নির্মীয়মাণ ‘আবুরা’ সড়ক (উঁচু রাস্তা) ও ইটনা ‘মহেশচন্দ্র বিদ্যানিকেতন’ পরিদর্শন করেন। বিকেলে ‘রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কলেজ’-এর ২০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে যোগ দেন রাষ্ট্রপতি। সন্ধ্যার পর তিনি ইটনা জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে স্থানীয় ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

সফরসূচি অনুযায়ী, আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় হেলিকপ্টারে করে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ইটনা থেকে অষ্টগ্রামে যাবেন। দুপুর ১টায় তিনি ‘অষ্টগ্রাম রোটারি ডিগ্রি কলেজ’-এর ২৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে বক্তব্য দেবেন। এরপর বিকেল সাড়ে ৩টায় তিনি অষ্টগ্রাম খেলার মাঠে সুধী সমাবেশে যোগ দেবেন। রাতে তিনি অষ্টগ্রাম ডাকবাংলোয় থাকবেন। আগামীকাল বুধবার সকালে অষ্টগ্রামে বিভিন্ন উন্নয়নকাজ পরিদর্শন শেষে সকাল সাড়ে ১১টায় রাষ্ট্রপতি বঙ্গভবনের উদ্দেশে রওনা করবেন।


মন্তব্য