kalerkantho


সিলেটে অপহৃত শিশু লালমনিরহাট থেকে উদ্ধার

সিলেট অফিস   

১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



সিলেট নগরের কানিশাইল এলাকা থেকে অপহরণের দুই দিন পর গতকাল রবিবার লালমনিরহাট থেকে এক শিশুকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে অপহরণকারীদের কাউকে আটক করা যায়নি।

অপহূত শিশু নিয়ামতুল ইসলাম রিফাত নগরের কানিশাইল এলাকার বাসিন্দা নেছার আহমদের ছেলে। অপহরণকারীরা রিফাতের বাবার পরিচিত এবং অপহরণের পর চার লাখ টাকা মুক্তিপণও দাবি করেছিল তারা।

রিফাতের মা স্বপ্না বেগম জানান, গত শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে রিফাত নাশতা খেয়ে পাশের বাসায় খেলতে যায়। সেখান থেকে চিপস ও একটি খেলনা দিয়ে বাবার কাছে নিয়ে যাচ্ছে বলে স্বাধীন মিয়া নামের এক ব্যক্তি তাকে নিয়ে যায়। লালমনিরহাটের বাসিন্দা স্বাধীন মিয়া রিফাতের বাবার সঙ্গে কাজ করার সুবাদে পরিচিত হওয়ায় রিফাত তার সঙ্গে চলে যায়। রিফাতের বাবা গণপূর্ত বিভাগের প্রথম শ্রেণির ঠিকাদার।

পরিবারের সদস্যরা জানান, রিফাতকে লালমনিরহাট নিয়ে যায় অপহরণকারীরা। সেখান থেকে তার বাবাকে ফোন করে চার লাখ টাকা মুক্তিপণ চায়। রিফাতের মা-বাবা পুলিশকে বিষয়টি জানান এবং কোতোয়ালি থানায় মামলাও (নং-৩/১১/৩১৭) করেন।

এরপর শিশু রিফাতকে উদ্ধারে তৎপর হয় পুলিশ।

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার সাদেক কাওসার দস্তগীর বলেন, পুলিশ প্রথমেই প্রযুক্তির সহায়তায় অপহরণকারীদের অবস্থান চিহ্নিত করে। মুক্তিপণের দাবীকৃত টাকার মধ্যে ৫০ হাজার অপহরণকারীদের দেওয়া বিকাশ নম্বরে পাঠানো হয়। মূলত অপহরণকারীদের চিহ্নিত করতে ফাঁদ পাতার জন্য এই টাকা দেওয়া হয়। বিকাশে দেওয়া টাকা অপহরণকারীরা লালমনিরহাট থেকে উত্তোলন করে। প্রযুক্তির সহায়তায় ওই বিকাশ নম্বরের অবস্থানও চিহ্নিত করে পুলিশ। এরপর অপহরণকারীর নম্বর ও বিকাশ নম্বর ট্র্যাক করে তাদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়।

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, লালমনিরহাট সদর থানার পুলিশের সহায়তায় উদ্ধার অভিযান চালানো হয়। বিষয়টি টের পেয়ে রিফাতকে রেখে পালিয়ে যায় অপহরণকারীরা। গতকাল দুপুর ১২টার দিকে লালমনিরহাটের খুনিয়াগাছ এলাকা থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি বলে কোতোয়ালি থানার ওসি সোহেল আহম্মদ জানান।

 


মন্তব্য