kalerkantho


বিকল্প বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা শিগগিরই জানাবে জাতীয় কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি সহসাই প্রকাশ করবে বিকল্প বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা। বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন পদ্ধতিতে ব্যয় বেশি হচ্ছে এবং বিদ্যুৎকন্দ্রগুলো পরিবেশের ক্ষতি করছে।

এমন ভাবনা থেকেই জাতীয় কমিটি সুলভে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে। গতকাল শনিবার এক আলোচনাসভায় এসব তথ্য জানান কমিটিসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

রাজধানীর পুরানা পল্টনের মুক্তি ভবনে গতকাল জাতীয় কমিটি এক আলোচনাসভার আয়োজন করে। ‘বাংলাদেশের গ্যাস সম্পদ, জাতীয় সক্ষমতা ও জ্বালানি খাতে সরকারি নীতি’ শীর্ষক আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ। আলোচনায় অংশ নেন কমিটির সদস্যসচিব ও অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. বদরুল ইমাম, অধ্যাপক ড. এম এম আকাশ, সমুদ্র বিশেষজ্ঞ নূর মুহাম্মদ, জ্বালানি গবেষক মাহা মির্জা প্রমুখ। আলোচনায় পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোশাহিদা সুলতানা।

আলোচনাসভায় অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, সরকার রপ্তানির বিধান রেখে শিগগিরই সাগরের তেল-গ্যাস একটি বিদেশি কম্পানিকে ইজারা দেওয়ার চুক্তি করতে যাচ্ছে। অবিলম্বে এ রপ্তানির বিধান বাতিল করতে হবে। বাংলাদেশের গ্যাস বিদেশে রপ্তানির বিধান রেখে কোনো চুক্তি হতে পারে না।

আলোচকরা বলেন, ‘দেশের গ্যাসক্ষেত্রগুলো বিদেশি কম্পানিকে ছেড়ে দিয়েছে সরকার, এ কারণে নিজের দেশের গ্যাস বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। আর বিদেশ থেকে বেশি দামে এলএনজি (তরলায়িত প্রাকৃতিক গ্যাস) আমদানি করার সুযোগ দিচ্ছে কিছু দেশি-বিদেশি ব্যবসায়ী গোষ্ঠীকে। পর্যাপ্ত অনুসন্ধান ও কূপ খনন না করেই আমরা বলছি দেশে গ্যাস নেই। এর ফলে এলএনজি আমদানি করাটা বাধ্যতামূলকভাবে দেখানো হচ্ছে। ’

 


মন্তব্য