kalerkantho


ভারতের সঙ্গে প্রতিরক্ষা চুক্তি স্বাধীনতা হুমকিতে ফেলবে : বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



বাংলাদেশ-ভারত প্রতিরক্ষা চুক্তি নিয়ে যে খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, তা স্বাক্ষরিত হলে দেশের সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে পড়বে। বাংলাদেশের নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় ‘মেড ইন ইন্ডিয়া’ ছাপ মারতেই এ চুক্তির জন্য ভারত চাপ প্রয়োগ করছে বলে জনমনে সন্দেহ। এই অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের আলোচ্য বিষয় আগেভাগেই প্রকাশ করা উচিত। গতকাল শুক্রবার পৃথক অনুষ্ঠানে বিএনপির পক্ষ থেকে এসব কথা বলেছেন দলটির নেতারা।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ভারত সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কী কী বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন তা জাতি জানতে চায়। সে জন্য আলোচ্য বিষয়াবলি আগেভাগেই প্রকাশ করতে হবে। এরপর জাতি বিবেচনা করবে কোনটা দেশের জন্য মঙ্গলজনক, কোনটা নয়।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে এম এ নোমান বলেন, ‘এমন কোনো চুক্তি করবেন না যার মাধ্যমে আমাদের জাতীয় স্বার্থ বিঘ্নিত হবে। ভারত আমাদের ভ্রাতৃপ্রতিম বন্ধু রাষ্ট্র। আমরা তাদের সঙ্গে সুন্দরভাবে থাকতে চাই। তবে সেটা সমতার ভিত্তিতে, মাথা নিচু করে নয়।

প্রধানমন্ত্রী ভারত থেকে দেশের জন্য কী নিয়ে আসেন তা দেখার জন্য আমরা অপেক্ষা করব। আমরা আশা করব, তিনি বাংলাদেশের স্বার্থের সপক্ষে বাংলাদেশের জন্য সুফল নিয়ে আসবেন। ’

আয়োজক সংগঠন জাতীয়তাবাদী বন্ধু দলের সভাপতি শরীফ মোস্তফা জামাল লিটুর সভাপতিত্বে মানববন্ধন কর্মসূচিতে আরো বক্তব্য দেন তৈমূর আলম খন্দকার, আহসান হাবিব লিংকন প্রমুখ।

এদিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী বলেন, ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা চুক্তির বিষয়ে গণমাধ্যমে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে তা নিয়ে দেশবাসী উদ্বিগ্ন। সংবাদপত্রে এমন খবরও প্রকাশিত হয়েছে যে তিস্তা চুক্তির টোপ দিয়ে বাংলাদেশ-ভারত প্রতিরক্ষা চুক্তি স্বাক্ষর করে নেওয়ার চেষ্টা চলছে। এ ধরনের চুক্তি হলে দেশের সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে পড়বে। শ্রীলঙ্কাও এমন চুক্তি করেছিল, যার পরিণতি হয়েছে ভয়ানক। এ ধরনের রাষ্ট্রবিরোধী প্রতিরক্ষা চুক্তি স্বাক্ষরিত হলে জনগণ দেশের স্বার্থে সর্বশক্তি দিয়ে তা প্রতিহত করবে।

আদালত নিরপেক্ষ হলে খালেদা জিয়া খালাস পাবেন : মওদুদ

বিরোধী দলকে সভা-সমাবেশ করতে না দিয়ে সরকার আবারও ‘একতরফা’ নির্বাচনের ষড়যন্ত্র করছে বলে অভিযোগ করেছেন মওদুদ আহমদ। গতকাল এক আলোচনাসভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য আরো বলেন, ‘একজন আইনজীবী হিসেবে বলতে চাই—যদি নিরপেক্ষ আদালত থাকে, যদি নিরপেক্ষতার সঙ্গে বিচারকরা দায়িত্ব পালন করেন, তাহলে খালেদা জিয়া খালাস পাবেন। ’

নির্বাচন প্রসঙ্গে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এরই মধ্যে নির্বাচনী প্রচারাভিযানে নেমে গেছেন। তিনি বগুড়ায় জনসভা করে নৌকায় ভোট চেয়েছেন। এটা দেখে মনে হচ্ছে, তাঁরা একরতফা একটা নির্বাচন করার ষড়যন্ত্র করছেন। আমরা বলতে চাই, গণতন্ত্রের পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে। আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করতে দিতে হবে। প্রতিবাদ করার সুযোগ দিতে হবে। ’


মন্তব্য