kalerkantho


মুক্তিযুদ্ধের আবৃত্তি উৎসব ‘শেকল ভাঙ্গার পদ্য’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



মুক্তিযুদ্ধের আবৃত্তি উৎসব

‘শেকল ভাঙ্গার পদ্য’

শুরু হয়েছে ‘শেকল ভাঙ্গার পদ্য’ শিরোনামে দুই দিনব্যাপী মুক্তিযুদ্ধের আবৃত্তি উৎসব। গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর রবীন্দ্রসরোবরে এ আবৃত্তি উৎসবের উদ্বোধন করেন অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ। আবৃত্তি সংগঠন বাকশিল্পাঙ্গন ষষ্ঠবারের মতো এ উৎসব আয়োজন করেছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ‘মুক্তিযোদ্ধা আবৃত্তিশিল্পী’ হিসেবে সম্মাননা জানানো হয় সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, সৈয়দ হাসান ইমাম, আশরাফুল আলম, কাজী আরিফ, পঞ্চানন চৌধুরী, মানবেন্দ্র বটব্যাল ও ডালিয়া আহমেদকে।

এবারের উৎসবে বাকশিল্পাঙ্গন আশ্রয় নিয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামে। তাঁর সাম্যবাদ-দেশপ্রেম-সমতার কথা নিয়ে সাজানো হয় প্রযোজনাগুলো।

আলোচনা পর্বের পরে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। উদ্বোধনী পর্বে জাতীয় সংগীত ও গণসংগীত পরিবেশন করে অঙ্কন শিক্ষালয় ও সংস্কৃতিকেন্দ্র। ‘সারা বিশ্বের বিস্ময়’ শিরোনামে আবৃত্তি প্রযোজনা নিয়ে মঞ্চে আসে মৈত্রী শিশুদল। ‘শেকল ভাঙ্গার নজরুল’ নিয়ে মঞ্চে আসে বাকশিল্পাঙ্গনের একটি দল। সভাপতি নাসির উদ্দীন এই প্রযোজনার নির্দেশনা দিয়েছেন।

আবৃত্তিশিল্পী ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফের প্রযোজনায় ‘এই কি স্বাধীনতা’ নিয়ে মঞ্চে আসে বাকশিল্পাঙ্গনের আরেকটি দল।

আবৃত্তি করেন রূপা চক্রবর্তী, ইস্তেকবাল হোসেন, বেলায়েত হোসেন, রফিকুল ইসলাম, জাহীদ রেজা নূর, মাসকুর এ সাত্তার, রেজীনা ওয়ালী লীনা, রাশেদ হাসান, সোহেল আনোয়ার, এমদাদ হোসেন কৈশোর, মশরুর হোসেন, মজুমদার বিপ্লব ও সুপ্রভা সেবুতী।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিন আজ শনিবার পরিবেশনা শুরু হবে বিকেল সাড়ে ৫টায়। ঢাকা স্বরকল্পনের খুদে আবৃত্তিশিল্পীরা পরিবেশন করবে ‘যুদ্ধ জয়ের কাব্য’। পরেই থাকছে বাকশিল্পাঙ্গনের চলতি ব্যাচের শিক্ষার্থীদের উপস্থাপনা ‘আমাদের সংগ্রাম চলবেই’। দলীয় প্রযোজনার মধ্যে থাকছে ‘ধরিত্রী’ ও ‘বিশ্ব মানুষ দিবস’।

খায়রুল আনাম শাকিলের সংগীতসন্ধ্যা

গতকাল জাতীয় জাদুঘরে ছিল খায়রুল আনাম শাকিলের একক সংগীতসন্ধ্যা। নজরুলসংগীতশিল্পী হলেও তিনি গেয়ে শোনান রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, অতুলপ্রসাদ, ডি এল রায়, রজনীকান্ত সেনের গানও। ছিল হারানো দিনের গানও। সব মিলিয়ে গানে গানে গোটা অনুষ্ঠান মাতিয়ে রাখেন এ শিল্পী।

নজরুলের ‘প্রথম প্রদীপ জ্বালো মম ভবনে’ গানের মধ্য দিয়ে পরিবেশনা শুরু করেন এ শিল্পী। এরপর পরিবেশন করেন নজরুলের কয়েকটি গান। তাঁর কণ্ঠে শোনা যায় অতুলপ্রসাদের ‘একা মোর গানের তরী ভাসিয়েছিলাম নয়ন জলে’ ও ‘মম মনের বিজনে আমি মিলিত তব সনে’; ডি এল রায়ের গান ‘আজি গাও মহাগীত’, রজনীকান্ত সেনের ‘মধুর সেই মুখখানি’, রবীন্দ্রনাথের ‘গায়ে আমার পুলক লাগে’ ও ‘এসো এসো আমার ঘরে এসো’।

অকালপ্রয়াত চার নাট্যযোদ্ধাকে স্মরণ

অকালে চলে গেছেন চার নাট্যকর্মী মেহেদী হাসান অভি, জসিম উদ্দিন নাছির, রফিকুল ইসলাম ও অপু আমান। তাঁদের স্মৃতির উদ্দেশে সংলাপ গ্রুপ থিয়েটার গতকাল শিল্পকলা একাডেমির পরীক্ষণ থিয়েটার হলে আয়োজন করে ‘স্মৃতিতে অম্লান’ শীর্ষক স্মৃতিচারণা ও বিশেষ নাট্য প্রদর্শনী। স্মৃতিচারণা করেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক ও গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী লাকী ও ফেডারেশনের সেক্রেটারি জেনারেল আকতারুজ্জামান। এর পর ছিল সংলাপ গ্রুপ থিয়েটারের নতুন নাটক ‘বোধ’ মঞ্চায়ন। মুন্সী প্রেম চাঁদের মূল গল্পে নাট্যরূপ দিয়েছেন স্বপন দাস ও নির্দেশনায় ছিলেন মোস্তফা হীরা।


মন্তব্য