kalerkantho


খুচরা বাজারে কাঁচা মরিচ ও সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখী

খুচরা বাজারে অধিকাংশ সবজিই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০




খুচরা বাজারে কাঁচা মরিচ ও সবজির

দাম ঊর্ধ্বমুখী

ঢাকার খুচরা বাজারে দাম বেড়েছে কাঁচা মরিচের। সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে ১০-১৫ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

তবে পাইকারি বাজারে এর দাম আগের মতোই রয়েছে। তা ছাড়া পণ্যটির সরবরাহেও কোনো ঘাটতি নেই। ঢাকার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সবজির দামও বেড়েছে অনেক বেশি।

মোহাম্মদপুর টাউন হল মার্কেট, কলাবাগান, শুক্রাবাদ, ফার্মগেট, সেগুনবাগিচা, শান্তিনগরসহ বেশ কয়েকটি খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়; যা আগে ৪৫-৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এ ব্যাপারে টাউন হল মার্কেটের সবজি বিক্রেতা ওমর ফারুক বলেন, ‘পাইকারি বাজার থেকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে বলে আমরা বেশি দামে বিক্রি করছি। ’ তবে কারওয়ান বাজার ও মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটের পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পাঁচ কেজি কাঁচা মরিচ পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায়। অর্থাৎ কেজিপ্রতি দাম পড়ছে ৩০ থেকে ৩২ টাকা। এ ব্যাপারে কারওয়ান বাজারের পাইকারি বিক্রেতা ফিরোজ বলেন, ‘কাঁচা মরিচের সরবরাহে সমস্যা নাই। দামও বাড়ে নাই।

আগের মতোই ১৫০ টাকা পাল্লা (পাঁচ কেজি) বিক্রি করছি। ’ একই বাজারের খুচরা মার্কেটে প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

শুধু কাঁচা মরিচ নয়, খুচরা বাজারে অধিকাংশ সবজিই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে ক্রেতারা। শুক্রাবাদে বাজার করতে আসা মনির হোসেন ভুঁইয়া বলেন, ‘দেখুন, এক কেজি পটোল যদি ৬০ টাকা, ঢেঁড়স যদি ৫০ টাকায় কিনতে হয়, তাহলে সেটাকে কি কম দাম বলবেন? কোনোভাবেই এই দামটাকে কম বলার সুযোগ নেই। এ দাম অবশ্যই চড়া। ’

বিভিন্ন বাজার থেকে পাওয়া তথ্য মতে, প্রতি কেজি আলু ২০ টাকা, শিম ৪০ টাকা, পটোল ৬০-৮০ টাকা, ঝিঙা ৫০-৬০ টাকা, বেগুন ৪০-৫০ টাকা, উচ্ছে ৪০-৫০ টাকা, করলা ৫০-৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০-৬০ টাকা, ফুলকপি ৩০-৪০ টাকা, টমেটো ও শসা ৪০-৫০ টাকা, দেশি ও আমদানি করা পেঁয়াজ ২৫ টাকা, দেশি রসুন ১০০-১২০ টাকা, আমদানি করা রসুন মানভেদে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১০০-১০৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে পাঁচ লিটারের সয়াবিন তেলের বোতল বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা থেকে ৫২০ টাকায়।  

তবে বিভিন্ন ধরনের চালের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। স্থিতিশীল রয়েছে মাছের বাজারও। প্রতি কেজি তেলাপিয়া মাছ ১০০-১৩০ টাকা, টেংরা ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা, মাঝারি রুই ১৮০-২২০ টাকা এবং বড় আকারের রুই ২৮০-৩০০ টাকা, ৬০০-৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের হালি দুই হাজার থেকে তিন হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  

এ ছাড়া পরিবর্তন আসেনি মাংসের দামেও। গরুর মাংস প্রতি কেজি ৪৫০ টাকা থেকে ৫২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে বেশির ভাগ বাজারেই ৪৮০ টাকা দামে এ মাংস বিক্রি করতে দেখা গেছে। খাসির মাংস ৭৫০-৮০০ টাকা এবং ব্রয়লার মুরগি ১৪৫-১৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।


মন্তব্য