kalerkantho


ঢাকায় প্রথম শুরু হচ্ছে পুলিশপ্রধানদের সম্মেলন

জঙ্গিবাদ-মানবপাচার রোধে কাজ করবে ১৪ দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



জঙ্গিবাদ-মানবপাচার রোধে কাজ করবে ১৪ দেশ

দক্ষিণ এশিয়া থেকে জঙ্গিবাদ ও মানবপাচার রোধে একযোগে কাজ করবে ১৪টি দেশ। আগামী ১২ মার্চ ঢাকায় প্রথমবারের মতো পুলিশপ্রধানদের নিয়ে শুরু হচ্ছে ‘চিফ অব পুলিশ কনফারেন্স’।

কনফারেন্সে ১৪ দেশের প্রতিনিধি ছাড়াও ইন্টারপোল, ফেসবুক, যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এফবিআই) প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। তবে  সম্মেলনে পাকিস্তান আসছে না। বাংলাদেশে আসার জন্য তাদের চিঠি দেওয়া হলেও তাদের সাড়া পাওয়া যায়নি।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ সদর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন) মোখলেছুর রহমান, অতিরিক্ত আইজিপি (অর্থ) ফাতেমা বেগম, অতিরিক্ত আইজিপি মাইনুর রহমান চৌধুরী, ডিআইজি (প্রশাসন) বিনয় কৃষ্ণ বালা প্রমুখ।

আইজিপি শহীদুল হক বলেন, ‘কোনো একক দেশের পক্ষে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমন সম্ভব নয়। জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনে প্রয়োজন আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সহযোগিতা ও সমন্বয়ে একটি কার্যকর কর্মপন্থা কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন, যা এখন সবচেয়ে জরুরি এবং সময়ের দাবি। আগামী ১২-১৪ মার্চ পর্যন্ত ঢাকার সোনারগাঁও হোটেলে হবে চিফ অব পুলিশ কনফারেন্স অব সাউথ এশিয়া অ্যান্ড নেইবারিং কান্ট্রিস অন রিজিওনাল কো-অপারেশন ইন কার্ভিং ভায়োলেন্ট এক্সট্রিমিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম। ’

আইজিপি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ ও মানবপাচার রোধে ১৪টি দেশ একযোগে কাজ করবে।

তা ছাড়া অর্থনৈতিক অপরাধ, সন্ত্রাসী অর্থায়ন, মাদকদ্রব্য পাচার রোধ, অবৈধ অস্ত্র চোরাচালান প্রতিরোধ, গোয়েন্দা তথ্য আদান-প্রদান, সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণ নিয়েও বিশদ আলোচনা হবে। ’

জানা যায়, সম্মেলন শেষে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনসহ আন্তদেশীয় অপরাধ প্রতিরোধের কর্মপন্থা নির্ধারণ করে ‘যৌথ ঘোষণা’ স্বাক্ষর হবে। সম্মেলনে অংশ নেবে আফগানিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, ভুটান, ব্রুনাই, চীন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, মালদ্বীপ, মালয়েশিয়া, মিয়ানমার, নেপাল, দক্ষিণ কোরিয়া, শ্রীলঙ্কা ও ভিয়েতনাম। তা ছাড়া ইন্টারপোল, ফেসবুক, যুক্তরাষ্ট্রের আইজিসিআই, এফবিআই, আসিয়ানপোল প্রভৃতি সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ ৫৮ জন বিদেশি থাকবেন কনফারেন্সে।

কনফারেন্সে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর সঙ্গে বন্দি বিনিময় চুক্তি হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে আইজিপি আরো বলেন, ‘কয়েকটি দেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে বন্দি বিনিময় চুক্তির বিষয়ে আলোচনা হবে। তাদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে এমওইউ (চুক্তি) স্বাক্ষর হবে। ’

জঙ্গি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের ভূমিকা থাকলেও কারাগার থেকে জঙ্গিরা বাইরে যোগাযোগ করে নানা ধরনের নির্দেশনা দিচ্ছে। এ বিষয়ে আইজিপি বলেন, ‘জঙ্গিদের বাইরে যোগাযোগের বিষয়ে কারাগারের কিছুটা যোগসাজশ থাকতে পারে। পুলিশ এতে কিছু করতে পারে না। তবে সরকার ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে চিন্তা করছে। আপনারা জানেন, সাম্প্রতিক সময়ে গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারি, কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া ঢাকার মিরপুর, কল্যাণপুর, আজিমপুর, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশ সফল অভিযান পরিচালনা করেছে। বাংলাদেশ পুলিশ অন্যান্য বাহিনী এবং জনগণের সহযোগিতায় অত্যন্ত উঁচুমানের পেশাদারিত্ব বজায় রেখে জঙ্গি দমনে সফল হয়েছে, যা দেশে-বিদেশে ব্যাপক প্রশংসা অর্জন করেছে। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান থাকবে জিরো টলারেন্স। ’

পুলিশ সূত্র জানায়, সম্মেলন চলাকালে আইজিপি ইন্টারপোল মহাসচিবসহ বিভিন্ন দেশের পুলিশ প্রধানদের সঙ্গে পৃথক বৈঠকে বসবেন। বৈঠককালে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতিসহ পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। তা ছাড়া আন্তদেশীয় অপরাধ ও সন্ত্রাস দমনে অভিজ্ঞতা ও তথ্য বিনিময়, আন্তদেশীয় অপরাধ এবং সন্ত্রাস দমনে একটি সমন্বিত কৌশল প্রণয়ন, এ অঞ্চলের পুলিশপ্রধানদের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে একটি প্লাটফর্ম গঠন, দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মধ্যে পেশাগত ও কৌশলগত নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা এবং দ্বিপক্ষীয় ও আঞ্চলিক সহযোগিতার ব্যাপারে আলোচনা হবে।


মন্তব্য