kalerkantho


কানাডীয় হাইকমিশনার বলেন

বাংলাদেশে সহিংস উগ্রবাদী তত্ত্ব শিকড় গেড়েছে

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



বাংলাদেশে সন্ত্রাসী ও উগ্রবাদী কর্মকাণ্ডের দৃশ্যমান বিস্তার বেশ উদ্বেগের বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকায় কানাডীয় হাইকমিশনার বেনওয়া পিয়েরে লাঘামে। বিশেষ করে বিদেশিদের লক্ষ্য করে অনেক হামলার প্রসঙ্গ তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘সহিংস উগ্রবাদী মতবাদগুলো সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশে শিকড় গাড়তে সক্ষম হয়েছে। গত জুলাই মাসে হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা ছিল এ সমস্যার সবচেয়ে নাটকীয় বহিঃপ্রকাশ। ’

গতকাল বুধবার সকালে ঢাকার একটি হোটেলে উগ্রবাদ মোকাবেলাবিষয়ক এক সেমিনারে বক্তব্য দেওয়ার সময় কানাডিয়ান হাইকমিশনার এ কথা বলেন। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল পিস অ্যান্ড সিকিউরিটি স্টাডিজ (বিপস) ওই সেমিনারের আয়োজন করে।

বেনওয়া পিয়েরে লাঘামে বলেন, সন্ত্রাসের ঝুঁকি মোকাবেলা করা সরকার ও নাগরিকসমাজের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। ঝুঁকি মোকাবেলায় সৃজনশীল পন্থা ও সহযোগিতা প্রয়োজন। তিনি বলেন, ‘অপরাধীদের কাছে ক্রমবর্ধমান কৌশল রয়েছে এবং তা আমাদের কাজকে অত্যন্ত কঠিন করে তুলছে। উগ্রাবাদ দমনে অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় এখন আরো সমন্বিত আঞ্চলিক পন্থা থাকা দরকার; যা আন্তর্জাতিক ব্যবস্থায়ও যুক্ত হতে পারে। ’ এ প্রসঙ্গে তিনি জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতায় একসঙ্গে কাজ করা এবং তা এগিয়ে নেওয়ার ওপর জোর দেন।

বিশ্বের কোনো দেশই সহিংস উগ্রবাদের ঝুঁকি থেকে মুক্ত নয় উল্লেখ করে কানাডীয় হাইকমিশনার বলেন, তাঁর দেশ কানাডাও এ সমস্যা মোকাবেলা করছে।

কয়েক সপ্তাহ আগেও কানাডার কুইবেক সিটিতে একটি মসজিদে সহিংস ডানপন্থী সন্ত্রাসীদের হামলায় ছয়জন নিহত ও ১৯ জন আহত হয়।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধে নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহীদুল আনাম খান উগ্রবাদের বিস্তার ঠেকাতে গণমাধ্যমের ভূমিকার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, অনেক সময় গণমাধ্যমে উগ্রবাদীদের কর্মকাণ্ডকে বীরের মতো কাজ হিসেবে তুলে ধরা হয়।


মন্তব্য