kalerkantho


রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর সংসদে সাধারণ আলোচনা

আগামী নির্বাচন সঠিক সময়ে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকার ও বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা বলেছেন, সংবিধান অনুযায়ী আগামী নির্বাচন হবে। কেউ যদি মনে করেন নির্বাচনে অংশ না নিলে নির্বাচন হবে না, এটা ভুল। কেউ না এলে নির্বাচন বন্ধ থাকবে না। নির্বাচন সঠিক সময়ে সংবিধান অনুযায়ীই হবে। নির্বাচন নিয়ে যেকোনো ষড়যন্ত্র মোকাবিলার জন্য জনগণকে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান তাঁরা।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রথমে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এবং পরে ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে এই আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনায় অংশ নেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং পানিসম্পদমন্ত্রী ও বিরোধী জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতার ঘোষণার পাশাপাশি বাংলাদেশের পূর্ণ কর্তৃত্ব নিজের হাতে নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। একমাত্র ক্যান্টনমেন্ট ছাড়া পুরো বাংলাদেশে মুজিবের শাসন শুরু হয়। ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয় মহার্ঘ স্বাধীনতা।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ ভাষণ।

একটি মাত্র ভাষণে তিনি নিরস্ত্র বাঙালি জাতিকে সশস্ত্র জাতিতে পরিণত করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু স্কুলজীবন থেকে কারাভোগ করা শুরু করেন। দেশের স্বাধীনতার আন্দোলন করতে গিয়ে বঙ্গবন্ধুকে সর্বমোট ১৪টি বছর পাকিস্তানের কারাগারে বন্দিজীবন কাটাতে হয়েছে।

পানিসম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, মাত্র ১২ শ শব্দের ১৮ মিনিটের ভাষণে বঙ্গবন্ধু গোটা জাতির ভাগ্যের পরিবর্তন করেন, নিরস্ত্র বাঙালি জাতিকে সশস্ত্র জাতিতে পরিণত করেছেন।


মন্তব্য