kalerkantho


আন্তর্জাতিক নারী দিবস আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। এবার এ দিবসের প্রতিপাদ্য ‘নারী-পুরুষের সমতায় উন্নয়নের যাত্রা, বদলে যাবে বিশ্ব, কর্মে নতুন মাত্রা’। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও সরকারি ও বেসরকারিভাবে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হবে। রয়েছে শোভাযাত্রা, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি। এ দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা বাণী দিয়েছেন।  

বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ দেশ গড়ার সব কাজে নারীরা পুরুষের সহযোদ্ধা হিসেবে অবদান রাখছে উল্লেখ করে বলেছেন, দেশের অর্থনীতি, রাজনীতি, সংস্কৃতি, বিচার, প্রশাসন, কূটনীতি, সশস্ত্র বাহিনী, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সর্বক্ষেত্রে নারীর সফল ও গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা এখন যথেষ্ট দৃশ্যমান। বাংলাদেশের নারীসমাজও একইভাবে বেগম রোকেয়ার দেখানো পথ ধরে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, মহান স্বাধীনতা সংগ্রামসহ দেশ গঠনে অসামান্য ভূমিকা রেখে চলেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্মক্ষেত্রে নারীর সম-অধিকার প্রতিষ্ঠা করে জাতীয় উন্নয়নের মূলধারায় নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে উন্নত, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের সময়োপযোগী ও বলিষ্ঠ পদক্ষেপের ফলে সর্বক্ষেত্রে নারীরা যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখছে। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ুআমরা জাতিসংঘের এমডিজি অ্যাওয়ার্ড, সাউথ-সাউথ অ্যাওয়ার্ড, প্লানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন, এজেন্ট অব চেঞ্জ, শিক্ষায় লিঙ্গ সমতা আনার স্বীকৃতিস্বরূপ ইউনেস্কোর ‘শান্তি বৃক্ষ’সহ অসংখ্য আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন করেছি। গ্লোবাল জেন্ডার গ্যাপ রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায় সব দেশের চেয়ে ভালো।

দিবসটি উপলক্ষে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বাণীতে বলেন, বাংলাদেশকে একটি সুখী, সমৃদ্ধ ও আত্মনির্ভরশীল দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হলে সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রতিটি ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

‘ফ্রিডম উইমেন্স কার্নিভাল’ : আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে ফ্রিডম স্যানিটারি ন্যাপকিন প্রথমবারের মতো শুধু নারীদের নিয়ে আয়োজন করছে ‘ফ্রিডম উইমেন্স কার্নিভাল’। আজ বুধবার রাজধানীর ধানমণ্ডির কলাবাগান মাঠে এই কার্নিভাল অনুষ্ঠিত হবে। দিনব্যাপী এই আয়োজনে নারীদের জন্য থাকছে মেহেদী উৎসব, নাগরদোলা, কারাওকে, বিভিন্ন ধরনের গেমস ও ঢাকার বিখ্যাত সব খাবারের সমাহার। আরো থাকছে সুরের মূর্ছনা। অনুষ্ঠানে জাতীয় পর্যায়ে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ আটজন নারীকে সম্মাননা প্রদান করা হবে। আয়োজনের মিডিয়া পার্টনার থাকছে কালের কণ্ঠ।


মন্তব্য