kalerkantho


১৪ দলের বৈঠক

চলতি অধিবেশনেই গণহত্যা দিবসের স্বীকৃতি দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশনেই ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার দাবি জানিয়েছে ক্ষমতাসীন ১৪ দল। গতকাল সোমবার সকালে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বৈঠকে এমন দাবি জানান ক্ষমতাসীন জোটের নেতারা।

বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘বৈঠকে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে ঘোষণা করার দাবি উঠেছে। আমরা আশা করছি, সামনে ১১ মার্চের সংসদ অধিবেশনেই প্রস্তাবটি উত্থাপিত হবে। আর সেদিনই এটি গণহত্যা দিবস হিসেবে গৃহীত হবে বলে আমরা আশা করি। ’

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক নেতা কালের কণ্ঠকে জানান, ১৪ দলের শরিক কয়েকটি দলের নেতারা বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে সংঘটিত গণহত্যা নিয়ে পাকিস্তানের অপপ্রচার মোকাবেলায় সোচ্চার হওয়ার তাগিদ দেন। তাঁরা বলেন, সম্প্রতি পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই মিথ্যা তথ্য দিয়ে একটি প্রকাশনা বের করে বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকের কাছে তা সরবরাহ করে বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করছে। এর বিরুদ্ধে এখনই সোচ্চার হতে হবে। সংসদের চলতি অধিবেশনেই ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবসের স্বীকৃতি দিয়ে এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনের জোরালো তত্পরতা শুরু করতে হবে।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ নাসিম, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাম্যবাদী দলের দিলীপ বড়ুয়া, জাসদের শরীফ নূরুল আম্বিয়া, জেপির শেখ শহীদুল ইসলাম, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের ওয়াজেদুল ইসলাম, তরীকত ফেডারেশনের আবদুল আউয়াল, গণতন্ত্রী পার্টির শাহাদাত হোসেন, বাসদের রেজাউর রশীদ খান, ন্যাপের ইসমাইল হোসেন, গণআজাদী লীগের এস কে সিকদার।

১৪ দলের একাধিক সূত্রে জানা যায়, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম তাঁর বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সমালোচনা করেন। অর্থমন্ত্রী সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে দারিদ্র্য বিমোচনে ভূমিকা রাখায় ড. ইউনূসের প্রশংসা করেন। নাছিম বলেন, অর্থমন্ত্রীর বক্তব্য দলের অবস্থানের বিরোধী। তাঁর সংযত হওয়া দরকার।

বৈঠক সূত্র মতে, শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে অংশ না নিয়ে কিয়ামত পর্যন্ত বিএনপি অপেক্ষা করবে—দলটির নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় যে মন্তব্য করেছেন তার সমালোচনা করেন মোহাম্মদ নাসিম ও দিলীপ বড়ুয়া। মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘কেউ যদি ইচ্ছা করে নির্বাচনে না এসে নির্বাচন বানচালের চেষ্টা করে, সেটা তাদের বিষয়। আমরা চাই সকলেই আসুক। গয়েশ্বরের বক্তব্যের সঙ্গে তার দলের অন্য নেতাদের বক্তব্যের মিল নেই। ’ দিলীপ বড়ুয়া বলেন, ‘আমরা কারো জন্য অপেক্ষা করব না। কে নির্বাচনে আসবে বা আসবে না সেটা তাদের ইচ্ছা। ’


মন্তব্য