kalerkantho


ব্রিটিশ কাউন্সিলে আলোকচিত্র প্রদর্শনী ‘লন্ডন ১৯৭১’

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে লন্ডনে আন্দোলনের ঘটনার দুর্লভ স্থিরচিত্র, ভিডিও চিত্র এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসসংবলিত অন্যান্য নথিপত্র নিয়ে প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে ব্রিটিশ কাউন্সিল। প্রদর্শনীর নাম দেওয়া হয়েছে ‘লন্ডন ১৯৭১ : মুক্তিযুদ্ধে বিলাতপ্রবাসী বাঙালির গৌরবগাথা’। রাজধানীর ফুলার রোডে ব্রিটিশ কাউন্সিলের প্রধান কার্যালয়ে গত শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া মাসব্যাপী এ প্রদর্শনী এবং এই উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানগুলো সবার জন্য উন্মুক্ত। প্রদর্শনীতে প্রদর্শিত ৪০টির  বেশি দুর্লভ স্থিরচিত্র সংগ্রহ করেছেন লন্ডন ১৯৭১ প্রকল্পের উদ্যোক্তা উজ্জ্বল দাশ।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ আন্তর্জাতিক মহলে, বিশেষ করে বিলাতপ্রবাসী বাঙালিদের মনে স্বাধীনতার সংগ্রামকে ছড়িয়ে দেয়। স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য উদাত্তভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ে তারা। এ সময় দেশের বাইরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে যে আন্দোলন হয় তা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

মুক্তিযুদ্ধকালে যুক্তরাজ্যে প্রবাসী বাঙালিদের অবদান এবং অবস্থার পরিবর্তনে শিল্পের ভূমিকা পুনরাবিষ্কারের উদ্দেশ্যে প্রদর্শনীটির আয়োজন বলে জানালেন কিউরেট শেহজাদ চৌধুরী। ব্রিটিশ কাউন্সিলে মার্চ মাসের প্রতি শুক্রবার বিশেষ অনুষ্ঠান সবাইকে স্মরণ করিয়ে দেবে লন্ডনের সংঘাতময় দিন, মুক্তিযুদ্ধে ব্রিটিশ কাউন্সিলের ভূমিকা এবং বাংলাদেশি শিল্পীদের প্রতিক্রিয়ার কথা।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী গত শুক্রবার বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ওই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্য বিশিষ্ট অতিথির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে ব্রিটিশ ডেপুটি হাইকমিশনার ডেভিড অ্যাশলে, সাবেক পররাষ্ট্রসচিব ও ইউরোপে প্রথম বাংলাদেশি কূটনীতিক মহিউদ্দীন আহমেদ, লন্ডন ১৯৭১ প্রকল্পের চেয়ারম্যান ফজলুল কবির তুহিন, ব্রিটিশ কাউন্সিলের কান্ট্রি ডিরেক্টর বারবারা উইকহ্যাম, ব্রিটিশ কাউন্সিলের অ্যাকটিং ডিরেক্টর (আর্টস) কেনডাল রবিনস ও ব্রিটিশ কাউন্সিলের হেড অব আর্টস নাহিন ইদ্রিস।

বারবারা উইকহ্যাম এ প্রদর্শনী প্রসঙ্গে বলেন, ‘বাংলাদেশ ও বাংলাদেশিদের জীবনে ১৯৭১ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও স্মরণীয় ঘটনা। মুক্তিযুদ্ধকালে লন্ডনে বসবাসরত বিশেষ করে বিলাতপ্রবাসীদের গৌরবগাথা ও স্বাধীনতাযুদ্ধে ব্রিটিশ কাউন্সিলের প্রত্যক্ষ ভূমিকার সাক্ষী হতে পারে এ প্রদর্শনী। এমন আয়োজন করতে পেরে আমরা অত্যন্ত গর্বিত ও সম্মানিত। ’


মন্তব্য