kalerkantho


জবিতে ছাত্রলীগের হামলায় আহত ১৫

জবি প্রতিনিধি   

১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ছাত্রলীগকর্মীদের হামলায় ১৫ শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থীদের আউটডোর পরীক্ষার সময় এ হামলার ঘটনা ঘটেছে।

হামলায় নেতৃত্ব দেওয়া শিক্ষার্থী সফিকুল গণি স্বপনকে (সম্রাট) বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

জানা যায়, চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষারত অবস্থায় জবির বোটানিক্যাল গার্ডেনে অবস্থান করছিলেন। এমন সময় ছাত্রলীগকর্মী সফিকুল গণি স্বপন (সম্রাট) গার্ডেনে প্রবেশ করতে চাইলে পরীক্ষার্থী আবেশ তাঁকে নিষেধ করেন। সম্রাট এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সেখানে মেয়ে শিক্ষার্থীদের যৌন হয়রানি শুরু করেন। এ সময় শিক্ষার্থীরা বাধা দিলে তিনি বাগিবতণ্ডায় লিপ্ত হন। একপর্যায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাত-আটজন কর্মীকে নিয়ে এসে শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিসোঁটা দিয়ে হামলা চালানো হয়। হামলায় শিক্ষার্থী জয়, সনেট, কেয়া, মৌমিতা, সোহাগ, আবেশ, সুশমীতা, জ্যোতিসহ কমপক্ষে ১৫ শিক্ষার্থী আহত হন। এ সময় ছাত্রীদের শারীরিকভাবেও লাঞ্ছিত করা হয় বলে অভিযোগ করে অনেকে।

আহত শিক্ষার্থী কেয়া বলেন, ‘মানুষ বিশেষত এক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কী করে এমন বাজে ব্যবহার করতে পারে! এত কিছুর পরও প্রক্টর অফিসে অভিযোগ দেওয়ার সময় সে নানাভাবে হুমকি দিচ্ছিল।

সে বলছিল, তোদের আবার দেখে নেব। ’

চারুকলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. বজলুর রশিদ খান এ ব্যাপারে বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার্থীরা বোটানিক্যাল গার্ডেনে আউটডোর পরীক্ষা দেওয়ার সময় ছাত্রলীগের কিছু কর্মী তাদের ওপর হামলা চালায়। আমরা জবি প্রশাসনকে লিখিতভাবে অভিযোগ দিয়েছি, ভিসি স্যারকে জানিয়েছি। এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করছি। ’

ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, সম্রাট বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম সিরাজুল ইসলামের একনিষ্ঠ কর্মী। সম্রাটের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে কথা বলতে এস এম সিরাজুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাঁর মোবাইল ফোনসেট বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে হামলাকারী সম্রাটকে বহিষ্কারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।


মন্তব্য