kalerkantho


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

ফের নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ করল আ. লীগ

রাজশাহী অফিস   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



দলীয় লোকদের নিয়োগের দাবিতে ফের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ করে দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। গতকাল সোমবার তাদের অবরোধে উপাচার্যের বাসভবনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিতব্য পরীক্ষা ভণ্ডুল হয়ে গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরে ‘জনসংযোগ কর্মকর্তা’র একটি পদের জন্য গতকাল বিকেলে ৪টা থেকে মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। উপাচার্যের বাসভবনের কার্যালয়ে এই পরীক্ষার জন্য নিয়োগ বোর্ড বসার কথা ছিল। এ জন্য ছয়জন প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য ডাকা হয়েছিল।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা গেছে, বিকেল পৌনে ৩টার দিকে মতিহার থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা উপাচার্যের বাসভবনের ফটকে অবস্থান নেয়। এ সময় কেউ বাসভবনে প্রবেশ করতে গেলে তাকে বাধা দেওয়া হচ্ছিল। বিকেল ৪টার কিছু আগে এক প্রার্থী পরীক্ষা দেওয়ার জন্য প্রবেশ করতে গেলে অবরোধকারীরা তাঁকে বাধা দেয়। নিয়োগের কোনো পরীক্ষা হবে না জানিয়ে তাঁকে দ্রুত ক্যাম্পাস ত্যাগ করতে বলে নেতাকর্মীরা। এমন অবস্থার খবর শুনে আর কোনো প্রার্থী পরীক্ষা দেওয়ার জন্য সেখানে যাননি।

অবরোধ চলাকালে মতিহার থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘জামায়াত-বিএনপির আমলে মাস্টাররোলে নিয়োগ পাওয়া ৫৪৪ জনের মধ্যে থেকে কিছুসংখ্যক লোককে অ্যাডহকে নিয়োগ দেওয়া হবে—এমন খবরে গত শনিবার আমরা প্রশাসন ভবনের ফটক অবরোধ করেছিলাম।

পরে প্রক্টর স্যার উপাচার্যের প্রতিনিধি হিসেবে এসে বলেছিলেন এই প্রশাসনের আমলে আর কোনো নিয়োগ আমরা দেব না। কিন্তু আজ জনসংযোগ দপ্তরে কর্মকর্তা নিয়োগের ভাইভা বোর্ড বসিয়েছে। তাই আমরা বাধা দিয়েছি। ’ আপনাদের চাওয়া-পাওয়া কী—এমন প্রশ্নের জবাবে মো. আলাউদ্দিন বলেন, ‘আমাদের চাওয়া-পাওয়া আছে। নির্যাতিত ছাত্রলীগের যাদের হাত-পা কাটা, রগটাকা তাদের নিয়োগ দিতে হবে। ’

এর আগে গত শনিবার নিয়োগ বন্ধের দাবিতে প্রশাসন ভবনের প্রবেশ পথ অবরুদ্ধ করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা। প্রায় এক ঘণ্টা অবস্থানের পর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনো নিয়োগ দিচ্ছে না—এমন আশ্বাসে তারা ফিরে যায়।


মন্তব্য