kalerkantho


পরীক্ষায় মানসিক চাপ কমাবে...

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পরীক্ষায় মানসিক চাপ কমাবে...

ভালো প্রস্তুতি : শুধু পরীক্ষার জন্যই যে পড়তে হবে, এমন কোনো কথা নেই। বছর ধরে শিক্ষক যা পড়াচ্ছেন, সেগুলো ভালোভাবে পড়ে রাখতে হবে। এতে পরীক্ষার আগে প্রস্তুতি ভালো থাকবে। খুব একটা বাড়তি প্রস্তুতি নিতে হবে না। ফলে পরীক্ষার আগে স্বস্তিতে থাকতে পারবেন।

মেডিটেশন : সহজ মেডিটেশনেই মন শান্ত রাখা সম্ভব। এ জন্য খুব একটা সময়ও নষ্ট হবে না। তবে সঠিক ফল লাভের জন্য নিয়মিত মেডিটেশন করা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে মেডিটেশনের বইয়ের সহায়তা নিতে পারেন। একটি সহজ মেডিটেশন হতে পারে—হাঁটু ও পায়ের পাতার ওপর ভর করে শিথিলভাবে বসে গভীরভাবে শ্বাস নেওয়া। এ সময় চোখ বন্ধ করে অন্য সব চিন্তা বাদ দিয়ে কল্পনা করতে হবে শান্ত কোনো পরিবেশ।

প্রতিদিন গড়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট এ মেডিটেশনেই ফল মিলবে।

ভালো খাবার, বিশ্রাম ও ঘুম : নাওয়া-খাওয়া ভুলে দিন-রাত পড়াশোনা করলেই ভালো ফল মিলবে, তা নয়। এতে বরং উদ্বেগ বেড়ে যাবে। পরীক্ষায় ভালো ফলের জন্য নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। পড়াশোনার পাশাপাশি কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে পড়ার বিষয়গুলো চিন্তা করতে হবে। এ ছাড়া প্রতি রাতে পর্যাপ্ত ঘুমানো প্রয়োজন। অন্যথায় মস্তিষ্ক ঠিকঠাক কাজ করবে না।

মানসিক চাপের কারণ নির্ণয় : অল্পস্বল্প মানসিক চাপ অনেক সময় পড়ার উন্নতি করতে পারে। তবে তা যদি বাড়তি হয়ে যায়, তাহলে সে চাপকে উপেক্ষা করবেন না। ঠিক কী কারণে মানসিক চাপ তৈরি হচ্ছে, তা জেনে নিন। হতে পারে কারো কথার কারণে কিংবা পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার আশঙ্কায় আপনার মানসিক চাপ তৈরি হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে বিষয়গুলোকে উপেক্ষা না করে মোকাবিলা করুন। প্রয়োজনে অভিজ্ঞ কারো সঙ্গে কনসাল করুন।

সংগীত : সংগীত মস্তিষ্কের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে এবং মন শান্ত করে। তবে সারাক্ষণ সংগীত শুনতে হবে না। প্রতিদিন নির্দিষ্ট কিছু সময় এর পেছনে ব্যয় করতে পারেন।

হিন্দুস্তান টাইমস অবলম্বনে ওমর শরীফ পল্লব


মন্তব্য