kalerkantho


অরুণ জেটলি আসছেন

অতিথিকে অন্য বাংলাদেশ দেখাতে চান মুহিত

আবুল কাশেম   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সফরে আসছেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। আগামী মার্চে তাঁর সফরের সময় নির্ধারণ প্রায় চূড়ান্ত। তিন দিনে ৪২ ঘণ্টা সময় নিয়ে সফরের সম্ভাব্য সূচি ঠিক করেছেন তিনি। তবে তাঁকে সফরের সময় আরো ২৪ ঘণ্টা যোগ করার পরামর্শ দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। আর এই বাড়তি সময়ে অতিথিকে গ্রামীণ উন্নয়নে বদলে যাওয়া ‘অন্য বাংলাদেশ’ দেখাতে চান তিনি।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জানান, অরুণ জেটলির বাংলাদেশ সফরের সম্ভাব্য সময় নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ১৭-১৯ মার্চ। ওই সূচি অনুযায়ী তিনি ১৭ মার্চ বিকেল ৪টায় ঢাকায় অবতরণ করবেন। ফিরে যাবেন ১৯ মার্চ সকাল ১০টায়। মাঝের ১৮ মার্চ ঢাকায় গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নেবেন তিনি।

অরুণ জেটলির বাংলাদেশ সফরের খবরে উচ্ছ্বসিত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তবে এত অল্প সময়ে সন্তুষ্ট হতে পারছেন না তিনি।

গত এক দশকে বাংলাদেশের গ্রামীণ অর্থনীতিতে যে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে, তা কোনো একটি জেলায় নিয়ে গিয়ে জেটলিকে দেখাতে চান তিনি।

এ প্রসঙ্গে মুহিত বলেন, ‘বাস্তবে এটি এক দিনের ভ্রমণ হবে। তাঁকে পরামর্শ দেওয়া যায় যে, তিনি আরো এক দিন সময় নিয়ে আসুন। ১৭ থেকে ২০ মার্চ পর্যন্ত। তাহলে তাঁকে এক দিন ঢাকার বাইরে নিয়ে যাওয়া যাবে—খুলনা, রাজশাহী বা যশোরে। বাংলাদেশের সর্বত্র বিশেষ করে মফস্বল এলাকায় উন্নয়নের গতি লক্ষণীয়। সেই বাংলার সঙ্গে বিদেশিদের পরিচিতি মূল্যবান। ’

অর্থমন্ত্রীর এই আগ্রহের কথা এখন ভারতের অর্থ মন্ত্রণালয়কে জানিয়ে অরুণ জেটলির সফর ২০ মার্চ পর্যন্ত বর্ধিত করার বিষয়ে আলোচনা চলছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা কালের কণ্ঠকে বলেন, অরুণ জেটলির দপ্তর বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছে।

২০১৪ সালের ২৬ মে ভারতের অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ার পর অরুণ জেটলির এটাই হবে প্রথম বাংলাদেশ সফর। এর আগে ভারতের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীরা বাংলাদেশ সফরে এলেও দেশটির অর্থমন্ত্রীরা খুব একটা আসেননি। বাংলাদেশের সঙ্গে খুবই ঘনিষ্ঠ প্রণব মুখার্জি ভারতের রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর বাংলাদেশ সফরে এসেছেন। এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালেও তিনি বাংলাদেশ সফর করেন। তবে অর্থমন্ত্রীর মেয়াদকালে প্রণব মুখার্জি বাংলাদেশ সফরে আসেননি। তাই অরুণ জেটলির সফরকে গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ জানায়, গত নভেম্বরে পররাষ্ট্রসচিব শহীদুল হক ভারত সফরে গেলে দেশটির পররাষ্ট্রসচিব জয়শংকর নতুন ঋণের জন্য প্রকল্প তালিকা তৈরির প্রস্তাব দেন। ভারতের তরফ থেকে অবকাঠামো, দারিদ্র্য বিমোচন ও দুই দেশের মধ্যে আঞ্চলিক সংযোগে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে এমন প্রকল্প হাতে নিতে বলা হয়। পররাষ্ট্রসচিব শহীদুল হক দেশে ফিরে ইআরডিকে চিঠি দিয়ে প্রকল্প বাছাইয়ের অনুরোধ করেন। সে পরিপ্রেক্ষিতে এখন পর্যন্ত আটটি প্রকল্প চূড়ান্ত করেছে ইআরডি।


মন্তব্য