kalerkantho


পিকনিকের বাস পুকুরে, তিনজন নিহত

আহত হয়েছেন আরো অন্তত ১১ জন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার মহাডাঙ্গা এলাকায় পিকনিকের বাস সড়কের পাশের পুকুরে পড়ে তিনজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো অন্তত ১১ জন। গতকাল শুক্রবার এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত তিনজন হলেন জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার নয়াদিয়াড়ি গ্রামের জহুর উদ্দীনের ছেলে এন্তাজ আলী (৬৫), নজরুল ইসলামের ছেলে আব্দুল করিম (৩৫) ও রশিদ আলীর ছেলে হাসিম আলী (৬২)।

আহত ব্যক্তিদের চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

দুর্ঘটনাকবলিত বাসে থাকা কবির আলী জানান, গোমস্তাপুর উপজেলার নয়াদিয়াড়ি গ্রামের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বাবুডাইং এলাকায় পিকনিক করে দুটি বাসে করে বাড়ি ফিরছিল। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে দুটি বাসের একটি মহাডাঙ্গা এলাকায় এসে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশের পুকুরে পড়ে যায়। তিনি বলেন, ‘হঠাৎ বাসটি হুড়মুড় করে পুকুরে নেমে যায়। আমি বাসের পেছন দিকে ছিলাম। আমরা জানালা ভেঙে কোনো রকমে বেরিয়ে আসি। ’

কবির আলী জানান, এন্তাজ, করিম ও হাসিম বাসের সামনের দিকে চালকের পাশেই ছিলেন।

তাঁরা ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পিকনিকের বাস দুটি আগে পিছেই যাচ্ছিল। মহাডাঙ্গা সেতু পার হওয়ার আগেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি পুুকুরে পড়ে যায়। পুকুরে পড়ে বাসটি উল্টে যায় এবং এর বেশির ভাগ অংশ পানির নিচে তলিয়ে যায়। দুর্ঘটনার পরপরই স্থানীয় লোকজন এবং খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল এসে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টা করে পুকুর থেকে বাস ও যাত্রীদের উদ্ধার করা হয়। বাসে অন্তত ৫০ জন যাত্রী ছিল। বেশ কিছু যাত্রী বাসের ওপরেও ছিল।

উদ্ধার হওয়া যাত্রীদের মধ্যে আহত মোবারক হোসেন (৪৫), মানিরুল ইসলাম (৫০), মঞ্জুর আলী (৪০), আব্দুল মালেক (৫০), মনিরুল ইলাম (৪০), কবির আলী (৪০), ওমর ফারুক (৪২), তাইজুল ইসলাম (৬৫), আব্দুল মতিন (৬৭), মোয়াজ্জেম হোসেনসহ (৬০) ১১ জনকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে কর্মরত উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আহতদের চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসার পর আমরা পরীক্ষা করে তিনজনকে মৃত পাই। বাকিদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ’ তিনজনের লাশ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলে তিনি জানান।


মন্তব্য