kalerkantho


বাসচালক জামিরের যাবজ্জীবন

চুয়াডাঙ্গায় বাস-ট্রাক শ্রমিকদের কর্মবিরতি শুরু, দুর্ভোগ

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ফাতেমা খাতুনের বাড়ি চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার হাটবোয়ালিয়া এলাকায়। চুয়াডাঙ্গা সদর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে। জরুরি কাজ থাকায় গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে তিনি চুয়াডাঙ্গার উদ্দেশে বাড়ি থেকে রওনা দেন। কিন্তু রাস্তায় এসে দেখেন বাস চলছে না। বাধ্য হয়ে স্যালো ইঞ্জিনচালিত যান আলমসাধুতে চড়ে তিনি চুয়াডাঙ্গা শহরে আসেন। পথে পথে শত বিড়ম্বনা সয়ে দুপুরের পর তিনি বাড়ি ফেরেন একই উপায়ে।

গতকাল ভোর থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলায় বাস-মিনিবাস ও ট্রাক শ্রমিকদের তিন দিনব্যাপী ‘অঘোষিত’ কর্মবিরতির প্রথম দিনে এ পরিস্থিতিতে পড়েন ফাতেমা খাতুনসহ হাজারো মানুষ। চিত্র পরিচালক তারেক মাসুদ ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব মিশুক মুনীরের মৃত্যুতে দায়ী বাসচালক জামির হোসেনকে মানিকগঞ্জের আদালত গত বুধবার যাবজ্জীবন সাজার রায় দিলে এই কর্মবিরতির ডাক দেয় চুয়াডাঙ্গার বাস-মিনিবাস ও ট্রাক শ্রমিকরা।

জানা গেছে, রায় ঘোষণার পর গত বুধবার দুপুরেই শ্রমিকরা অঘোষিতভাবে জেলা বাস ও ট্রাক চলাচল বন্ধ করে দিয়েছিল। একইভাবে গতকাল সকাল থেকেও বাস-ট্রাক চলাচল বন্ধ করে কর্মবিরতি পালন করে। শেষ পর্যন্ত গতকাল সকাল ১১টায় চুয়াডাঙ্গা শহীদ হাসান চত্বরে এক সমাবেশে শ্রমিকরা আনুষ্ঠানিকভাবে তিন দিনের কর্মবিরতি কর্মসূচি ঘোষণা করে।

এভাবে আগে থেকে ঘোষণা না দিয়ে বাস-ট্রাক বন্ধ করে দেওয়ায় মারাত্মক দুর্ভোগে পড়ে সাধারণ মানুষ।

কর্মবিরতির কারণে বৃহস্পতিবার সারাদিন চুয়াডাঙ্গা জেলার সব রুটে যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। চুয়াডাঙ্গা-আলমডাঙ্গা, চুয়াডাঙ্গা-জীবননগর, চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ ও চুয়াডাঙ্গা-হাটবোয়ালিয়া রুটে কোনো বাস ও মিনিবাস চলেনি। ঢাকাগামী চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স, পূর্বাশা পরিবহন, জে আর পরিবহন, রয়েল পরিবহনসহ ঢাকাগামী সব যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। বাস-মিনিবাস, ট্রাক ও ঢাকাগামী পরিবহন চলাচল বন্ধ থাকায় চুয়াডাঙ্গা জেলার সঙ্গে সারা দেশের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে পড়ে।


মন্তব্য