kalerkantho


সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতারা

কানাডার আদালতের রায় সরকারের চক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



হরতাল-অবরোধে সহিংসতা ও সন্ত্রাসের সঙ্গে বিএনপির সংশ্লিষ্টতা তুলে ধরে কানাডার আদালত যে রায় দিয়েছেন তা ‘সরকারের চক্রান্ত’ বলে মনে করছে বিএনপি। নির্বাচনের আগে জনগণের মধ্যে ‘ধোঁয়াশা’ সৃষ্টি করতে আওয়ামী লীগ সরকার এসব ঘটনা ঘটাচ্ছে বলে দাবি বিএনপি নেতাদের।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতারা এমন মন্তব্য করেন।

কানাডার আদালতের রায়ের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ বলেন, ‘সরকার-প্রভাবিত মিডিয়ায় আমরা সংবাদটি দেখেছি। কানাডার যে অনলাইনে খবরটি এসেছে সেটি চালান শওগাত আলী সাগর, যিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। তাঁরা কানাডায় বসে বিএনপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও নানা ধরনের চক্রান্তের বেড়াজাল তৈরি করছেন। ’

রিজভী বলেন, ‘রায় পড়ে যতটুকু বুঝেছি, এটা সম্পূর্ণ চক্রান্তমূলক নাটকের অংশ। বর্তমান সরকার উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বিষয়টি নিয়ে নাটক সাজাচ্ছে। ’

ওই রায়ের বিরুদ্ধে কানাডার উচ্চ আদালতে আপিল করবেন কি না—এ প্রশ্নের জবাবে রিজভী বলেন, ‘সেটা আমরা নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে বলতে পারব। তবে আমরা যতটুকু জেনেছি তাতে রায়ে বিচারক বলেছেন, আবেদনকারীর বক্তব্যকে আমলে নিয়ে অভিবাসন কর্মকর্তা বাংলাদেশের রাজনীতিকে সহিংস ঘটনা হিসেবে অবহিত করেন। ’ তিনি বলেন, ‘অভিবাসন কর্মকর্তা আরো বলেছেন—বিএনপি ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ উভয়ে জনগণ ও সরকারকে প্রভাবিত করার জন্য বিভিন্ন সময়ে সহিংস কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে।

সংবাদ সম্মেলনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমদ বলেন, ‘কানাডার যে আদালতে বিষয়টি উপস্থাপন করা হয়েছে, সেখানকার প্রসিকিউটররা বিএনপি ও আওয়ামী লীগ উভয় দলকে সন্ত্রাসী বলে আখ্যা দিয়েছেন। সুতরাং শুধু বিএনপিকে দোষারোপ করার মানে হয় না। এটি বিশ্বাস করলে, এটিও বিশ্বাস করতে হবে আওয়ামী লীগও সন্ত্রাসীদের দল। ’ তিনি বলেন, ‘কেউ যদি বিশ্বাস করে যে বিএনপি সন্ত্রাসী সংগঠন, তাহলে আওয়ামী লীগ এক ধাপ এগিয়ে আছে, আমাদের আগে আছে। ’

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী একুশের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে খালেদা জিয়ার শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিথ্যাচার করেছেন বলে অভিযোগ করেন। সেদিনের কিছু ছবি দেখিয়ে তিনি বলেন, সবাই যেখানে দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধার্ঘ্য দিয়েছেন, খালেদা জিয়াও সেখানে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

গাইবান্ধার সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যার পর পর বিএনপি-জামায়াতকে দোষারোপ করা হয়েছিল উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘ঘটনা ঘটলেই সেটার দায় বিএনপির ওপর চাপানোর চেষ্টা করে। সেদিনই যখন প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, জনগণ তাতে মুচকি হেসেছে। ’

সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আবদুল আউয়াল খান, মুনির হোসেন, ভোলা বিএনপির সভাপতি গোলাম নবী তালুকদার, লালমোহন থানা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক নজরুল কাদের মার্শাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 


মন্তব্য