kalerkantho


বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতি

টেকসই কৃষি উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



টেকসই কৃষি উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ গতকাল গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সমাবর্তনে শিক্ষার্থীদের হাতে সনদ তুলে দেন। ছবি : পিআইডি

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অর্জিত জ্ঞান, দক্ষতা ও নিজেদের সামর্থ্য কাজে লাগিয়ে টেকসই কৃষি উন্নয়ন নিশ্চিত করতে কৃষি বিজ্ঞানী, গবেষক ও সংশ্লিষ্ট অন্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার গাজীপুরের সালনায় অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতির ভাষণে তিনি এই আহ্বান জানিয়েছেন।

অনুষ্ঠানে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান। স্বাগত বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মাহবুবুর রহমান। অনুষ্ঠানে এক হাজার ৩১৩ জন শিক্ষার্থীকে ডিগ্রি ও সনদ দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রপতিকে ক্রেস্ট উপহার দেন উপাচার্য মাহবুুবুর রহমান।

রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর তাঁর ভাষণে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা আন্দোলন ও অন্যান্য গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যাঁরা অবদান রেখেছেন তাঁদের কথা স্মরণ করেন। তিনি বলেন, ‘কৃষি ও এর উৎসকে ভুলে গেলে চলবে না। বরং দেশের কৃষি ক্ষেত্রে নতুন বিপ্লব নিশ্চিত করতে টেকসই পদ্ধতি ও প্রযুক্তি উদ্ভাবনে অঙ্গীকার রাখতে হবে। ’ কৃষকদের পাশে থেকে বিভিন্ন মৌসুমি ফল ও ফসল উৎপাদনে উৎসাহিত করা এবং ফসলের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

দেশে উচ্চশিক্ষা সম্প্রসারণ হচ্ছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান একাডেমিক কারিকুলাম উত্তর আমেরিকার কারিকুলাম অনুযায়ী তৈরি।

এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা পদ্ধতি ও গবেষণা কার্যক্রম দেশ-বিদেশে সমাদৃত হচ্ছে। সময়োপযোগী শিক্ষা পদ্ধতি এবং শস্য, পশুসম্পদ, মত্স্য ও বনায়নসহ কৃষিক্ষেত্রে পরিকল্পনামাফিক উন্নয়নের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে আইসিটি সেক্টরে ব্যাপক অগ্রগতি ছাড়া জ্ঞানের বহুমুখী ব্যবহার ও উন্নয়ন সম্ভব নয়।

চ্যান্সেলর বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মুকাবিলা করা বাংলাদেশের জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জ। তাই আমাদের প্রয়োজন জ্ঞানভিত্তিক টেকসই কৃষি-প্রযুক্তির উদ্ভাবন এবং তার যথাযথ ব্যবহার করা। ’

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, কৃষিবিদ ও সংসদ সদস্য বাহাউদ্দিন নাছিম, সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।


মন্তব্য