kalerkantho


ভিসা ফি পাওয়া গেল সোয়া ৩ লাখ টাকা

আসিফ সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ভিসা ফি পাওয়া গেল সোয়া ৩ লাখ টাকা

৯১ জন বিদেশি পর্যটক নিয়ে বিলাসবহুল যাত্রীবাহী জাহাজ ‘সিলভার ডিসকভারার’ গতকাল বুধবার কক্সবাজারের সোনাদিয়া দ্বীপে নোঙর করেছে। এর মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক যাত্রীবাহী জাহাজ সার্ভিসে যুক্ত হলো বাংলাদেশ।

জাহাজটি নোঙর করার পর সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যাত্রীদের পাসপোর্ট টেকনাফ বন্দরে নিয়ে দ্রুত ‘অন এরাইভাল ভিসা’ দেওয়া হয়। প্রতিজনের কাছ থেকে ৫১ মার্কিন ডলার হিসেবে ভিসা ফি পাওয়া গেছে চার হাজার ৪১ মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় সোয়া তিন লাখ টাকা (প্রতি ডলার ৮০ টাকা হিসেবে)।

বিদেশি এ পর্যটকরা সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত কক্সবাজারের মহেশখালীর ঐতিহাসিক আদিনাথ মন্দির ও রাখাইন পল্লী ঘুরে দেখে।

বিলাসবহুল এ জাহাজটি শ্রীলঙ্কার কলম্বো থেকে এসেছে। আজ ২৩ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার বঙ্গোপসাগরের হিরণ পয়েন্ট, ২৪ ফেব্রুয়ারি সুন্দরবনের হারবারিয়া ভ্রমণ করবে পর্যটকরা। ২৮ ফেব্রুয়ারি কলকাতায় গিয়ে জাহাজটির যাত্রা শেষ হবে।

জানতে চাইলে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবুল কালাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সিলভার ডিসকভারার জাহাজটি সোনাদিয়া গভীর সাগরে নোঙর করে। এরপর কয়েকটি স্পিডবোটে পর্যটকদের নিয়ে সকাল ১০টায় মহেশখালী জেটিতে ভিড়ে। সেখান থেকে প্রথমে আদিনাথ মন্দির ও পাশের রাখাইন পল্লী ঘুরে দেখেন তাঁরা।

পর্যটকদের সম্পর্কে নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, তাঁদের বেশির ভাগ বয়স্ক। মহেশখালীর পাহাড়-নদীর অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখে তাঁরা মুগ্ধ হয়েছেন।

টেকনাফ স্থলবন্দরের উপপরিদর্শক জাকির হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সব পাসপোর্টে তিন দিনের অন এরাইভাল ভিসা দেওয়া হয়েছে। সুন্দরবন ভ্রমণ শেষে পর্যটকরা মোংলা বন্দর দিয়ে বাংলাদেশ ত্যাগ করবে। সে হিসেবে যাওয়ার সময় সেখানকার বন্দরের সিল লাগবে। ’ তিনি জানান, প্রত্যেকের কাছ থেকে ৫১ ডলার করে ভিসা ফি নেওয়া হয়েছে। জাহাজে থাকা বেশির ভাগ পর্যটক যুক্তরাজ্যের নাগরিক।

জানা গেছে, সমুদ্রপথে বিলাসবহুল জাহাজ পরিচালনাকারী ‘সিলভার সি’ গ্রুপ ৪৭টি জাহাজ দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পর্যটক পরিবহন করছে। তাদের দুটি রুটে যুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ। প্রথম রুটটি হচ্ছে শ্রীলঙ্কার কলম্বো থেকে বাংলাদেশ হয়ে কলকাতা। দ্বিতীয় রুটটি হচ্ছে কলকাতা থেকে বাংলাদেশ-মিয়ানমার হয়ে থাইল্যান্ড। এ রুটে যুক্ত হওয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার চেষ্টা করে আসছিল। গত বছর পর্যটন বর্ষ উপলক্ষে জোর চেষ্টা চালিয়ে আন্তর্জাতিক এ রুটে যুক্ত করতে সমর্থ হয় সরকার।

‘সিলভার ডিসকভারার’ জাহাজটি ১২ ফেব্রুয়ারি শ্রীলঙ্কার কলম্বো থেকে পর্যটক নিয়ে রওনা দেয়। ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার চারটি বন্দরে নোঙর করে এবং পর্যটকরা ওই সব এলাকা ঘুরে দেখে। ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৯ ফেব্রুারি পর্যন্ত ভারতের পাঁচটি বন্দরে নোঙর করে বিভিন্ন এলাকা ভ্রমণ করে ২১ ফেব্রুয়ারি রাতে বঙ্গোপসাগরে পৌঁছে।

জানা গেছে, এখনই এ জাহাজে বাংলাদেশি পর্যটকরা ভ্রমণের সুযোগ পাচ্ছে না। কারণ জাহাজটির যাত্রা শুরু শ্রীলঙ্কা থেকে আর শেষ কলকাতায়। ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১৬ দিনের এ ভ্রমণে প্রত্যেক পর্যটকের কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে ১০ হাজার ৭৫০ মার্কিন ডলার। এ ধরনের আরেকটি জাহাজ ২৭ ফেব্রুয়ারি কলকাতা থেকে রওনা দিয়ে সুন্দরবন, মহেশখালী, মিয়ানমার হয়ে থাইল্যান্ডের ফুকেটে পৌঁছবে ১৩ মার্চ। এ রুটে ভ্রমণের জন্য নেওয়া হচ্ছে যাত্রীপ্রতি সাড়ে ১০ হাজার ডলার।


মন্তব্য