kalerkantho


জুতা পায়ে শহীদ মিনারে! ব্যস্ততা সেলফি ও আড্ডায়

ঠাকুরগাঁও ও রূপগঞ্জ প্রতিনিধি   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ভাষাশহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে দেশের বিভিন্ন স্থানে অনেকেই জুতা পায়ে শহীদ মিনারের মূল বেদিতে উঠেছে। ছবি তোলার পাশাপাশি অনেকেই ছড়িয়ে থাকা ফুল মাড়িয়ে আড্ডায় মেতেছে মিনারের সিঁড়িতে। অমর একুশের ‘শ্রদ্ধা নিবেদনের’ এ বিপরীত চিত্র মিলেছে ঠাকুরগাঁও ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে। সেখানে শুধু শিশু-কিশোর নয়, প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদেরও দেখা গেছে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠতে।

ঠাকুরগাঁও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গতকাল মঙ্গলবার সকালে ছিল সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানের পর মিনারের মূল বেদিতে জুতা পায়ে বসে আড্ডা ও বেদিতে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলতে দেখা গেছে স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীদের। বড়দের এ আচরণে সাহসী হয়ে শিশুরা নির্বিঘ্নে জুতা পায়ে ছোটাছুটি করেছে মূল বেদিতে।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ঠাকুরগাঁও জেলার সভাপতি অনুপম মনি বলেন, প্রতিবছর মিনারে ফুল দেওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই এমন অবস্থা হয়। বছরের প্রায় প্রতিদিনই নষ্ট হচ্ছে মিনারের পবিত্রতা। সে ক্ষেত্রে শহীদ মিনারের মর্যাদা রক্ষায় চাই প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ।

উদীচীর সাধারণ সম্পাদক অমল টিক্কু বলেন, পারিবারিকভাবে অভিভাবকদের উচিত ছোট বেলা থেকেই এ ব্যাপারে সম্যক জ্ঞান দেওয়া।

ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে জানলে শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত হবে, তখন এমন ঘটনা ঘটাবে না কেউ।

এদিকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জুতা পায়ে দিয়েই শ্রদ্ধা জানাতে মূল বেদিতে উঠেছে। করেছে হট্টগোল। তারা শহীদ মিনার দখলে রাখতে ধাক্কাধাক্কি করতে থাকলে ফুল দিতে আসা অনেকেই ফিরে যায়।

মধ্যরাতে শ্রদ্ধা নিবেদনের প্রস্তুতি থাকলেও সোমবার রাত ১০টায় স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা শহীদ মিনারে পৌঁছে স্লোগান দিতে থাকে। এরপর রাত ১২টায় অনেক ব্যক্তি ও সংগঠনকে পাশ কাটিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা জুতা পায়ে উঠে যায় মূল বেদিতে ফুল দিতে। এ সময় বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধির পায়েও জুতা দেখা যায়। শহীদ মিনারে ফুল দিতে গিয়ে অনেকেই ব্যস্ত হয়ে পড়ে মোবাইলে সেলফি তোলায়।

এ বিষয়ে রূপগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা আল-আমিন দুলাল বলেন, এটি দেশ ও জাতির জন্য লজ্জার। যাঁরা রক্তের বিনিময়ে বাংলা ভাষা এনে দিয়েছেন, জুতা পায়ে তাঁদের শ্রদ্ধা জানানো দুঃখজনক ঘটনা।


মন্তব্য