kalerkantho


আইসিটি আইনে গ্রেপ্তার একজন

এবার নবীগঞ্জে হিন্দুদের বাড়িঘর ভাঙচুর

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



এবার হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সোমবার সকালে কয়েক হাজার মানুষ মিছিল নিয়ে মধ্যসমেত গ্রামে যায় এবং কয়েকটি বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুর চালায়।

এতে অন্তত চারটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এর আগে গত রবিবার বিকেলে ওই গ্রামের রজত রায় নামের এক ব্যবসায়ীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। ধর্ম অবমাননাকর ছবি ফেসবুকে পোস্ট করার অভিযোগে রাতেই তাঁর বিরুদ্ধে তথ্য ও প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা দায়ের করে পুলিশ।

উদ্ভূত পরিস্থিতি সামাল দিতে গতকাল দুপুর ২টার দিকে স্থানীয় বিদ্যালয় মাঠে প্রশাসনের কর্মকর্তারা এলাকাবাসীর সঙ্গে সভা করেছেন। এলাকায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ৩১ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে একইভাবে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ এনে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয়। ওই ঘটনার আগে ২৯ অক্টোবর রসরাজ দাস নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন তদন্ত করে বলেছে, রসরাজের মোবাইল ফোন থেকে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননাকর ছবি পোস্ট করা হয়নি।

প্রায় আড়াই মাস পর আদালত তাঁকে জামিন দেন।

নবীগঞ্জ থানার ওসি এস এম আতাউর রহমান জানান, গ্রেপ্তারকৃত রজত স্বীকারোক্তি দেওয়ায় গতকাল সকালে আদালতের মাধ্যমে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জানা গেছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ইনাতগঞ্জ বাজার ও আশপাশ এলাকায় দুই প্লাটুন বিজিবি, দুই প্লাটুন র‌্যাব ও ১০ প্লাটুন পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন তত্পর রয়েছেন। বাজারের বিভিন্ন স্থানে এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরের আশপাশের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করছেন গোয়েন্দারা।

এ ব্যাপারে ওসি আতাউর রহমান বলেন, বর্তমানে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে। অতিরিক্ত ডিআইজি নজরুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে।


মন্তব্য