kalerkantho


বাবুল আক্তারের সঙ্গে সম্পর্কের অভিযোগ

আমাকে রেহাই দিন : বর্ণি

মাগুরা প্রতিনিধি   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



‘আমার স্বামী মারা গেলে ফুফাতো ভাইয়ের সাথে পরকীয়া সম্পর্কের অভিযোগ এনে আমার মা-বাবাসহ পরিবারের অনেকের নামে হত্যা মামলা করেছিল আমার ননদ। পুলিশি তদন্ত, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনসহ অন্যান্য তদন্তে তা মিথ্যা প্রমাণিত হয়। এখন দুই বছর পর কোথাকার কোন বাবুল আক্তারের সঙ্গে পরকীয়ার অভিযোগ এনে আবার একই ষড়যন্ত্র করছে আমার প্রয়াত স্বামীর পরিবারের লোকজন। আমি একা কয়জনের সঙ্গে পরকীয়া করেছি। দয়া করে আমাকে এ ষড়যন্ত্র থেকে রেহাই দিন। আমি আমার আনিশাকে নিয়েই বাকি জীবনটা কাটিয়ে দিতে চাই। আমাকে নিরাপদে থাকতে দিন। ’

গতকাল সোমবার দুপুরে মাগুরা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এমনই আকুতি জানালেন সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত পুলিশের এসআই আকরাম হোসেনের স্ত্রী বনানী বিনতে বশির বর্ণি। ২০১৫ সালে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ সড়কের বড়দাহ এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছিলেন আকরাম।

এসপি বাবুল আক্তারের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কের প্রসঙ্গ এনে সম্প্রতি বিভিন্ন মিডিয়ায় বর্ণির প্রয়াত স্বামী এসআই আকরাম হোসেনের বড় বোন জান্নাত আরা রিনি যে অভিযোগ তুলেছেন, তারই প্রতিবাদে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বর্ণি বলেন, তাঁর সঙ্গে এসপি বাবুল আক্তারের কোনো দিন পরিচয় ঘটেনি।

অথচ শ্বশুরবাড়িতে থাকা তাঁর সম্পত্তি ও ঢাকায় মেয়ের নামে থাকা একটি ফ্ল্যাট দখল করার জন্য তাঁর শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁকে ঘিরে এসব কাল্পনিক অভিযোগ উপস্থাপন করছে। তিনি জানান, ২০১৫ সালে স্বামী এসআই আকরাম সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। সে সময় প্রয়াত স্বামী আকরাম হোসেনের বোন রিনি আকরামের স্ত্রী বর্ণি, তাঁর বাবা বশির উদ্দিন, মা সেলিনা খাতুন ও ফুফাতো ভাই সাদিমুল ইসলাম মুনের নামে হত্যা মামলা করেছিল। ওই সময় ফুফাতো ভাই মুনের সঙ্গে তাঁর পরকীয়া সম্পর্কের অভিযোগ তুলেছিল তারা। পুলিশি তদন্ত, মেডিক্যাল প্রতিবেদন ও অন্য প্রমাণাদিতে সেটি মিথ্যা প্রমাণিত হয়। এখন বাবুল আক্তারকে জড়িয়ে রিনি একই ধরনের অভিযোগ আনছে ও তাঁকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে বর্ণির বাবা বশির উদ্দিন উপস্থিত থেকে মেয়ের অবস্থান তুলে ধরেন। এক প্রশ্নের জবাবে বশির উদ্দিন বলেন, ‘বাবুল আক্তারের পরিবারের সাথে আমাদের সে রকম কোনো সম্পর্ক নেই। আমি দীর্ঘদিন মাগুরার মহম্মদপুরের পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশনে সিনিয়র ফিল্ড অফিসার পদে চাকরি করছি। বাবুল আক্তারের বাবা পুলিশের সাবেক এসআই আব্দুল ওয়াদুদের সাথে আমার পরিচয় মাগুরায় একটি চায়ের দোকানে। আমার জামাই নিহত হওয়ার পর বর্ণির শ্বশুরবাড়ির লোকজন আমাদের পরিবারের নামে মিথ্যা মামলা দেয়।


মন্তব্য