kalerkantho


চট্টগ্রামের উন্নয়ন সভায় কাঠবিড়ালি নিধন প্রসঙ্গ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



চট্টগ্রামের উন্নয়ন সভায়

কাঠবিড়ালি নিধন প্রসঙ্গ

চট্টগ্রামের উন্নয়ন সমন্বয় সভায় বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে ‘কাঠবিড়ালি’ প্রসঙ্গ। নারিকেল খেয়ে ফেলা কাঠবিড়ালি নিধনে কী করণীয় তা নিয়ে বিস্তর আলোচনা হয়।

সভায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়িত প্রকল্প সফল করতে সহযোগিতা চান জেলা প্রশাসক।

চট্টগ্রাম সার্কিট হাউস সম্মেলন কক্ষে গতকাল জেলার উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় জেলার ১৪ উপজেলার চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, পৌরসভার মেয়র ও সরকারি দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভাপতির বক্তব্যে মো. সামসুল আরেফিন বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। জঙ্গিবাদবিরোধী প্রচারণা জোরদার এবং জঙ্গিদের বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। আগামী মার্চ মাসে দেশের ২৫টি উপজেলাকে শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলা হিসেবে উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। তাই এর আওতায় চট্টগ্রামের যেসব উপজেলা রয়েছে, সেগুলোতে দ্রুত বিদ্যুতায়িত করার ব্যবস্থা নিতে হবে।

সভায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. আমিনুল হক চৌধুরী বলেন, ভিয়েতনাম থেকে সরকার উন্নতজাতের নারিকেল আমদানি করেছে। এর চাষাবাদ বাড়াতে হবে।

এ বক্তব্য শুনে কয়েকজন উপজেলা চেয়ারম্যান নারিকেল খেয়ে ফেলা কাঠবিড়ালি ধ্বংস করার কৌশল জানতে চান। চেয়ারম্যানদের এমন দাবির মুখে জেলা প্রশাসক কাঠবিড়ালি নিধনে করণীয় বিষয়ে জানাতে কৃষি কর্মকর্তাকে অনুরোধ জানান।

জবাবে কৃষি কর্মকর্তা বলেন, কাঠবিড়ালি শুধু বাংলাদেশের সমস্যা নয়, শ্রীলঙ্কা ও দক্ষিণ ভারতেও একই সমস্যা আছে। কাঠবিড়ালি নিধনের বিষয়ে ইতিপূর্বে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর অনেক উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু তার কার্যকর সুফল পাওয়া যায়নি। তবে কাঠবিড়ালি দমনের উপায় নিয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কাজ করছে। আশা করা যায়, আগামী দুই-তিন বছরের মধ্যেই গবেষণার ফল পাওয়া যাবে।

সভায় ভুয়া ডাক্তারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক-সেতু সংস্কার, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। চট্টগ্রামের হালদা নদীকে প্রাকৃতিক প্রজননের অন্যতম ক্ষেত্র হিসেবে চিহ্নিত করে হালদার ঐতিহ্য ধরে রাখতে সবার সহযোগিতা কামনা করা হয়।


মন্তব্য