kalerkantho


সাংবাদিকদের তথ্যমন্ত্রী

নবম ওয়েজ বোর্ডের প্রাথমিক কাজ শেষ

সংসদের আগামী অধিবেশনে তোলা হবে সম্প্রচার নীতিমালা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমকর্মীদের অন্তর্ভুক্ত করে নবম ওয়েজ বোর্ড গঠনে সরকার কাজ করছে। তিনি জানান, আগামী সংসদ অধিবেশনে সম্প্রচার নীতিমালা উত্থাপন করা হবে।

এ ছাড়া সাইবার অপরাধ দমন আইনেরও প্রশংসা করেন তিনি।

গতকাল রবিবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে ‘মিট দ্য রিপোর্টার্স’ অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব তথ্য জানান। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা।

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার ঘটনা আইনি দিক থেকে নিষ্পত্তি না হওয়াকে ব্যর্থতা হিসেবে মনে করেন হাসানুল হক ইনু। তিনি বলেন, ‘যেহেতু ব্যর্থতা স্বীকার করছি, সুতরাং ব্যর্থতা কাটিয়ে ওঠার সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। এ ব্যাপারে বেশি মন্তব্য করার সুযোগ আমার নেই। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আমরা যৌথভাবে ব্যর্থতা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি। ’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘জাতীয় সংসদের আগামী অধিবেশনে সম্প্রচার আইন উত্থাপন করা হবে। এর মাধ্যমে সম্প্রচার কমিশন গঠিত হবে।

টেলিভিশন, অনলাইন নিবন্ধন সম্প্রচার কমিশনের কাছে চলে যাবে। তারা ছাড়পত্র দিতে পারবে, বাতিল করার এখতিয়ারও থাকবে। তথ্য মন্ত্রণালয় সরাসরি দেখবে না। এটা আধাবিচারিক শক্তিশালী সংস্থা হবে। এবার ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে ওয়েজ বোর্ডে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। সাংবাদিকদের ওয়েজ বোর্ড গঠনের জন্য প্রাথমিক কাজ শেষ করা হয়েছে। এখন এই বোর্ডের প্রধান হিসেবে একজন বিচারপতির নাম চাওয়া হয়েছে আইনমন্ত্রীর কাছে। এটা হলেই বোর্ড গঠিত হবে। ’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সম্প্রচার এবং সাইবার অপরাধ দমন নামে দুটি আইন করা হচ্ছে। সাইবার অপরাধ দমন আইনটি যুগের চাহিদা। এটা করবই আমরা। এটা করতে হবে এ জন্য যে গণমাধ্যম এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি পুরো বাংলাদেশকে স্বচ্ছ কাচের ঘরে পরিণত করছে। ’

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘সাইবার আইন ও সম্প্রচার আইন আপনাকে নিরাপত্তা দেবে। নির্ভয়ে থাকুন। এটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। এ আইনগুলো হয়ে গেলে আইসিটি আইনটি পরীক্ষা করা হবে। প্রয়োজন না থাকলে বাতিল করা হবে। ’

বিএনপি প্রস্তাবিত নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার নিয়ে ইনু বলেন, ‘একটি নির্বাচিত সরকারের কাছ থেকে আরেকটি নির্বাচিত সরকারের দায়িত্ব গ্রহণের সময় অনির্বাচিত নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের প্রস্তাব কার্যত নির্বাচনকে ভণ্ডুল করা, অস্বাভাবিক সরকার গঠনের ক্ষেত্র তৈরির চক্রান্ত ছাড়া আর কিছুই না। ’


মন্তব্য