kalerkantho


হাতির পিঠে চড়ে সংবর্ধনায় গেলেন জেলা পরিষদ সদস্য

কুদ্দুস বিশ্বাস, রৌমারী (কুড়িগ্রাম)   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০




হাতির পিঠে চড়ে সংবর্ধনায়

গেলেন জেলা পরিষদ সদস্য

কুড়িগ্রামে হাতির পিঠে চড়ে সংবর্ধনা মঞ্চে যাচ্ছেন জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য। ছবি : কালের কণ্ঠ

হাতির পিঠে চড়ে সংবর্ধনায় যোগ দিয়ে আলোচনার জন্ম দিলেন কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত এক সদস্য। জেলা পরিষদের ১৫ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য পদের নির্বাচনে হাতি প্রতীকে বিজয়ী হয়েছিলেন আলহাজ আজিম উদ্দিন মাস্টার নামের এই সদস্য।

গতকাল শনিবার তিনি বাস্তবের হাতির পিঠে চড়ে সংবর্ধনায় যোগ দেন। ফলে রাস্তার দুই পাশে এবং গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে হাজারো দর্শকের উপস্থিতি ঘটে। সংবর্ধনায় তিনি সোনার আংটি ও একাধিক ক্রেস্ট উপহার নেন।

দুপুর ১২টার দিকে কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলার জাউনিয়ার চর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এলাকার প্রবীণ শিক্ষক আব্দুস সালাম মাস্টারের সভাপতিত্বে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠান শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও ব্যবস্থা করা হয়। বিশাল ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জাউনিয়ার চর উচ্চ বিদ্যালয় ও জাউনিয়ার চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজীবপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হাই সরকারসহ দলের স্থানীয় নেতা, শিক্ষকসহ প্রায় ৩০ জন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি। জেলা পরিষদের সদস্য ও পরিষদের চেয়ারম্যান প্যানেলের শীর্ষ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় তাঁকে সংবর্ধনা দেওয়া হয় বলে জানা গেছে।

সংবর্ধনায় তাঁকে বিভিন্ন ক্রেস্ট ও সোনার আংটি উপহার দেওয়া হয়।

কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্য আজিম উদ্দিন বর্তমানে রাজীবপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রয়েছেন। জেলা পরিষদের একজন সদস্য নির্বাচিত হয়ে এত বড় সংবর্ধনার আয়োজন করায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। প্রায় লাখ টাকা খরচ করে মাওয়া থেকে হাতি ভাড়া করে আনা হয় বলে জানা গেছে। আর ওই হাতির পিঠে চড়ে তিনি বাড়ি থেকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন। ব্যতিক্রম ও ব্যয়বহুল ওই আয়োজনে সারা উপজেলায় আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

এ প্রসঙ্গে আজিম উদ্দিন মাস্টার বলেন, ‘এলাকাবাসীই এ গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। যেহেতু হাতি প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছি, সে কারণে বাস্তবে হাতি এনেছি, যাতে আরো পরিচিত ও জনপ্রিয় হতে পারি আমি। কেননা আগামী সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য পদে মনোনয়ন চাইব। তাই আগে থেকেই এলাকা ও মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। ’


মন্তব্য