kalerkantho


বিশ্বব্যাংকের কাছে প্রতিকার দাবি আইনমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বিশ্বব্যাংক আইনের ঊর্ধ্বে নয়। যদি মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে কোনো ব্যক্তির সম্মানহানি করা হয়, তাহলে ওই ব্যক্তি (ক্ষতিগ্রস্ত) নিশ্চয়ই আইনি ব্যবস্থা নিতে পারেন। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে যা করা হয়েছে তার প্রতিকার চাই বিশ্বব্যাংকের কাছে। ’

বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে যুগ্ম জেলা ও দায়রা বিচারক এবং সমপর্যায়ের কর্মকর্তাদের এক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশসহ পৃথিবীর অন্য দেশগুলোর আস্থা ফেরাতে পদ্মা সেতু ইস্যুতে বিশ্বব্যাংককে পদক্ষেপ নিতে হবে মন্তব্য করে আনিসুল হক বলেন, ‘১৪ দল এক বিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ দাবি করেছে। প্রতিকার ক্ষতিপূরণ দিয়েও হতে পারে। আবার যেসব কর্মকর্তা আমাদের বিরুদ্ধে এই অবিচার করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েও তা হতে পারে। আর প্রধানমন্ত্রীর কাছে এবং যাঁদের দোষারোপ করা হয়েছে তাঁদের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। যেভাবেই হোক বাংলাদেশের আস্থা অর্জনে বিশ্বব্যাংককে  একটা ব্যবস্থা নিতে হবে। যাতে শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের অন্যান্য দেশও বিশ্বাস করতে পারে যে তাদের সঙ্গে এ রকম অন্যায় করা হলে তার প্রতিকার বিশ্বব্যাংক করবে। ’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ যখন বিশ্বব্যাংকের সদস্য হয়, তখন তাদের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে।

ঋণ বাতিল করলে বিশ্বব্যাংকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না—এমন কোনো বিধান তাতে আছে বলে আমার মনে হয় না। ’


মন্তব্য