kalerkantho


বস্তাবন্দি দুই শিশুর লাশ

স্বর্ণের দোকান মালিক পলাশ আটক

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



স্বর্ণের দোকান মালিক পলাশ আটক

সুমাইয়া খাতুন মেঘলা, সুমাইয়া খাতুন মেঘলা

চাঁপাইনবাবগঞ্জ নামোশংকবাটির ফতেপুর গ্রামে দুই শিশু সুমাইয়া খাতুন মেঘলা ও মেহজাবিন আক্তার মালিহা নিহত হওয়ার ঘটনায় স্মৃতি জুয়েলার্সের মালিক পলাশকে আটক করেছে পুলিশ। গত বুধবার রাতে নামোশংকরবাটি এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

পরে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতে সোপর্দ করলে আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম জানান, বুধবার বিকেলে মামলার প্রধান আসামি ফতেপুরের ইব্রাহিম আলীর স্ত্রী লাকি আক্তার চাঁপাইনবাবগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেওয়ার পর তার দেওয়া তথ্যানুযায়ী ওই এলাকার স্বর্ণের দোকানদার পলাশকে আটক করা হয়। লাকি আক্তার শিশু মেঘলা ও মাহিলার দেহে থাকা ১২ আনা ২ রতি স্বর্ণালংকার প্রায় ২১ হাজার টাকায় পলাশের দোকানে বিক্রি করে।

এদিকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দুই শিশুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধারের সময় আটক লাকি আক্তারের শ্বশুর ইয়াসিন আলীকেও আদালতে সোপর্দ করা হয়। চাঁপাইনবাবগঞ্জের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ইয়াসিন আলীকে সোপর্দ করে পুলিশ সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে। তবে আদালত থেকে এ বিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সিদ্ধান্ত জানানো হয়নি।

অন্যদিকে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার মেঘলা ও মালিহার লাশ উদ্ধারের পর বুধবার মালিহার লাশ দাফন সম্পন্ন হলেও মেঘলার লাশ প্রবাসী বাবা মিলন রানার অপেক্ষায় রাখা হয়েছিল চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালের হিমঘরে। গতকাল মেঘলাকে বাবার শেষ দেখার পর জানাজা শেষে দাফন করা হয়েছে। জানাজায় এলাকার শত শত মানুষ অংশ নেয়।

দুই শিশুর মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ফতেপুরসহ আশপাশের এলাকার কয়েক শ মানুষ বিক্ষোভ করেছে। হত্যাকারীর ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিলটি ফতেপুর থেকে বের হয়ে বটতলাহাট ঘুরে নামোশংকরবাটিতে গিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিল থেকে লাকি আক্তারের ফাঁসি দাবি করা হয়।


মন্তব্য