kalerkantho


সশস্ত্র বাহিনীর প্রতি রাষ্ট্রপতি

দেশ গঠনেও সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



দেশ গঠনেও সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ গতকাল রাজশাহী সেনানিবাসস্থ বাংলাদেশ ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্টাল সেন্টারে (বিআইআরসি) দ্বিতীয় কোর পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্যারেড পরিদর্শন করেন। ছবি : পিআইডি

জাতীয় নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব নিশ্চিত করার পাশাপাশি জরুরি পরিস্থিতিতে জনগণ ও দেশের কল্যাণে কাজ করার জন্য সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজশাহী ক্যান্টনমেন্টে বাংলাদেশ ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্টাল সেন্টারের (বিআইআরসি) পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি এ আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ‘আমি আশা করি, আপনারা সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা জরুরি পরিস্থিতিতে জনগণের কল্যাণে কাজ করবেন। জাতীয় নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব নিশ্চিত করার পাশাপাশি দেশ গঠনেও আপনারা সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন। ’

সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের (এএফডি) সর্বাধিনায়ক রাষ্ট্রপতি বলেন, সেনাবাহিনী একটি প্রতিষ্ঠান, যেখানে শৃঙ্খলা ও পেশাগত দক্ষতার কোনো বিকল্প নেই। রাষ্ট্রপতি তাঁর বক্তব্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং একাত্তরে স্বাধীনতাযুদ্ধে যাঁরা সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করেছেন সেই সব বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ভাষা আন্দোলনের বীর সৈনিকদের অবদানের কথা স্মরণ করেন। ১৯৯৯ সালে নীতিগতভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্ট (বিআইআর) গঠনে অনুমোদন দেওয়ায় এবং এই বাহিনী গঠনে যেসব সেনা সদস্যের অবদান রয়েছে, তাঁদের কথাও রাষ্ট্রপতি স্মরণ করেন।

আধুনিক, সময়োপযোগী ও শক্তিশালী সেনাবাহিনী তৈরিতে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে আবদুল হামিদ বলেন, বর্তমান সরকার ‘ভিশন ২০২১’-এ বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর লক্ষ্যমাত্রা ২০৩০ প্রস্তুত করেছে। রাষ্ট্রপতি সেনাবাহিনীর বিভিন্ন সেকশনে নতুন নতুন ইউনিট গঠন করার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় আধুনিক সরঞ্জাম ক্রয় করে এরই মধ্যে সেনাবাহিনীকে আধুনিক ও সময়োপযোগী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।


মন্তব্য