kalerkantho


বিশ্ব ভালোবাসা দিবস

দিকে দিকে অফুরান উচ্ছ্বাস

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



দিকে দিকে অফুরান উচ্ছ্বাস

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্রেন্ড অ্যান্ড ফ্রেন্ড উৎসব হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

ভালোবাসতে হয় নির্জনে নিভৃতে যতনে। ভালোবাসার মানুষের নামটি থাকে হৃদয়ে। তাকে ভালোবাসার বিশেষ ক্ষণ থাকে না, দিন আর রাত থাকে না। সব সময় তাকে কাছে পেতে ভালো লাগে। ভালোবাসার মানুষকে সব সময় কাছে যে পাওয়া যায় তাও নয়। কাছে না পেয়েও তাকে কাছে পাওয়ার ভাবনায় ভালোবাসা পায় গভীরতা, মহৎ হয়ে ওঠে ভালোবাসা নিবেদনকারী। এই ভালোবাসা প্রেমিকার প্রতি প্রেমিকের, মা-বাবার প্রতি সন্তানের। এই ভালোবাসা হতে পারে ঈশ্বরের জন্য, সত্য ও ন্যায়ের জন্য, দেশের জন্য।

ভালোবাসা চিরন্তন। তা কোনো নির্দিষ্ট দিনে গণ্ডিবদ্ধ থাকে না। তবে বিশেষভাবে নব্বইয়ের দশকে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস হিসেবে দেশে ভ্যালেনটাইনস ডে পালন শুরু হয়েছে।

ফাগুনের বাসন্তী রঙে নতুন মাত্রা যোগ করে গতকাল মঙ্গলবার দেশজুড়ে পালিত হয়েছে দিনটি। পহেলা ফাল্গুনের উৎসব পালনের পরদিন বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের রং তাই ছড়িয়ে পড়েছিল রাজধানী ঢাকার রাজপথ ছাড়িয়ে গলিপথে, মঞ্চে, শোভাযাত্রায়। ভালোবাসার দিনটিতে উচ্ছ্বাস ছড়িয়েছে দেশজুড়ে, দিকে দিকে।

রাজধানীতে টিএসসি ও শাহবাগ শুধু নয়, নগরীর প্রতিটি এলাকায় গতকাল ছিল ভালোবাসার মানুষকে নিয়ে মানুষের মেলা। আগের রাত থেকে প্রিয়জনের জন্য ফুল কিনে, আগে থেকেই শুভেচ্ছা কার্ড কিনে পরস্পরকে দিয়েছে লাখো প্রেমিক-প্রেমিকা। উপহারের সঙ্গে ছিল একসঙ্গে মুহূর্তগুলো কাটানোর পরম পাওনা। গতকাল বাংলা একাডেমির বইমেলা প্রাঙ্গণেও ছিল ভালোবাসায় উচ্ছ্বসিত মানুষের ভিড়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি জানান, গতকাল ভালোবাসার দিনে উৎসবে মেতেছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। সকাল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়াও জড়ো হতে থাকে নানা প্রান্তের মানুষ। মেয়েরা পরেছিল লাল রঙের শাড়ি, ছেলেদের বেশির ভাগের গায়ে ছিল সফেদ পাঞ্জাবি। অনেকের হাতেই শোভা পেয়েছে লাল গোলাপ। গল্প ও আড্ডার ফাঁকে বাদ যায়নি সেলফি তোলা। এমনই এক উৎসবমুখর পরিবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ে পালিত হয়েছে এবারের ভালোবাসা দিবস।

ক্যাম্পাসের বিভিন্ন চত্বরের সামনে ব্যাপকভাবে চোখে পড়েছে ফুলের ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতাদের। সূর্য পশ্চিমে গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ক্যাম্পাসের বটতলা, মল চত্বর, সবুজ চত্বর, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ এলাকা, হাকিম চত্বর, টিএসসি, কার্জন হলসহ সর্বত্র বিরাজ করে উৎসবের আমেজ। দিনটি উপলক্ষে মানববন্ধন ও শোভাযাত্রা বের করেছে ভালোবাসা দিবস উদ্যাপন পরিষদ। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আশিক আব্দুল্লাহ নিজের অভিব্যক্তি ব্যক্ত করেন এভাবে—‘ভালোবাসা দিবস একটি সর্বজনীন উৎসব। এই উৎসবটাকে আমরা শুধু প্রেমিক-প্রেমিকার সম্পর্কের মধ্যে আবদ্ধ করে ফেলেছি। আসলে ভালোবাসার প্রকাশ হতে পারে বন্ধু, বাবা-মা, আত্মীয়স্বজন সবার মাঝে। ’

এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় নৃত্যকলা বিভাগ ও যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের ইএমকে সেন্টারের যৌথ আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে নৃত্যকলা বিভাগের চেয়ারপারসন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাসহ ইএমকে সেন্টারের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃত্যকলা বিভাগ, সুরের ধারা শিল্পীগোষ্ঠী ও শমিরণ বাউলের পরিবেশনায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।


মন্তব্য