kalerkantho


এমএনপি সেবার লাইসেন্স

নিলাম নয়, বিউটি কনটেস্ট হবে

কাজী হাফিজ   

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



নিলাম নয়, বিউটি কনটেস্ট হবে

মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি (এমএনপি) অর্থাৎ নম্বর অপরিবর্তিত রেখে মোবাইল অপারেটর বদলের সেবা চালুর ঘোষিত রোডম্যাপ থেকে আগেই সরে এসেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। এখন এর লাইসেন্স দেওয়ার ক্ষেত্রে নিলামের পরিকল্পনা পাল্টে বিউটি কনটেস্ট বা আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের যোগ্যতা মূল্যায়নের সিদ্ধান্ত হয়েছে। একই সঙ্গে গত বছর এমএনপি লাইসেন্স নিলামে অংশ নিতে যেসব প্রতিষ্ঠান বিড আর্নেস্ট মানি বা নিরাপত্তা জামানতের টাকাসহ অন্যান্য ফি জমা দিয়েছিল, তা ফেরত দেওয়া হবে। ফলে আবারও নীতিমালা প্রণয়নসহ নতুন করে দরপত্র ডাকতে হবে। গত সপ্তাহে বিটিআরসির সর্বশেষ সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি সম্পর্কে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম গতকাল শনিবার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিটিআরসি চেয়ারম্যান কয়েক দিন আগে আমাকে এমএনপি লাইসেন্সের নীতিমালা পরিবর্তনের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন। তবে নীতিমালা সংশোধন করতে হলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন লাগবে। কারণ বর্তমান নীতিমালাটিও প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন করা। এ ছাড়া এর সঙ্গে যেহেতু আর্থিক যোগ আছে সেহেতু অর্থ মন্ত্রণালয়েরও অনুমোদন প্রয়োজন। বিটিআরসি তাদের সিদ্ধান্তের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানালে তা দ্রুত প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। ’

তারানা হালিম আরো বলেন, ‘এমএনপি সেবার বিষয়টি জনপ্রিয়।

যত দ্রুত সম্ভব এটা চালু করতে হবে। আশা করছি এপ্রিল বা মে নাগাদ লাইসেন্স দেওয়ার কাজটি সম্পন্ন হবে। ’

এর আগে গত নভেম্বরে গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বিটিআরসি লাইসেন্স নিলামের পরিকল্পনা অপরিবর্তিত রেখে এর নীতিমালা পাল্টে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়। সে সময় এই শর্ত আরোপের সিদ্ধান্ত হয় যে আবেদনকারী প্রতিষ্ঠানের বা তাদের পরিচালক/শেয়ারহোল্ডারদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রবিরোধী কার্যক্রমে সংশ্লিষ্টতাসহ বিরূপ কোনো তথ্য থাকলে তাঁরা এমএনপি লাইসেন্স পাবেন না। বিদ্যমান নীতিমালার আলোকে যে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে বিটিআরসি যোগ্য ঘোষণা করে রেখেছিল, সেগুলোর মধ্যে একটির বিরুদ্ধে গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে বিরূপ মন্তব্য পাওয়া যাওয়ায় বিটিআরসি ওই সিদ্ধান্ত নেয়।  

এ বিষয়ে বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ সে সময় কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘যে প্রতিষ্ঠানগুলোকে যোগ্য ঘোষণা করা হয়েছিল, তার মধ্যে একটি সম্পর্কে নেতিবাচক তথ্য পাওয়া গেছে। এ কারণেই নিলামে দেরি হচ্ছে। আশা করছি, জানুয়ারির মাঝামাঝি নিলাম অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করা যাবে। ’ কিন্তু বিটিআরসির সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুসারে আগ্রহী সব প্রতিষ্ঠানকে নতুন করে আবেদন করতে হবে এবং লাইসেন্স নিলাম হবে না। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি যে প্রতিষ্ঠানকে যোগ্য বিবেচনা করবে সেই লাইসেন্স পাবে।  

প্রসঙ্গত, বিটিআরসি গত বছরের  ১৪ জুন এমএনপি সেবার লাইসেন্স নিলামের সময়সূচিসহ রোডম্যাপ প্রকাশ করে। সে অনুসারে গত ডিসেম্বরের শেষ দিকেই এ সেবা চালুর কথা ছিল। বিটিআরসি প্রথমে নিলামের তারিখ গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর ঠিক করলেও পরে তা পাল্টে ২৮ সেপ্টেম্বর করে। কিন্তু গত ২১ সেপ্টেম্বর বিটিআরসি জানায় ২৮ সেপ্টেম্বর নিলাম হচ্ছে না।

এর আগে বিটিআরসি গত বছর ৭ সেপ্টেম্বর নিলামে অংশ নিতে ইচ্ছুক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে যোগ্য হিসেবে পাঁচটির নাম প্রকাশ করে। এগুলো হচ্ছে রিভ নাম্বার লিমিটেড, গ্রীনটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড, ইনফোজিলন বিডি টেলিটেক কনসোর্টিয়াম লিমিটেড, ব্রাজিল বাংলাদেশ কনসোর্টিয়াম ও রুটস ইনফোটেক লিমিটেড। এসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যথাক্রমে পোল্যান্ডের টি-ফোর-বি, লিথুনিয়ার মিডিয়াফোন, স্লোভেনিয়ার টেলিটেক, ব্রাজিলের ক্লিয়ারটেক ও নরওয়ের সিস্টোর গ্রুপের অংশীদারত্ব রয়েছে।


মন্তব্য