kalerkantho


এগুলোও পানিশূন্যতার লক্ষণ

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



এগুলোও পানিশূন্যতার লক্ষণ

মুখে দুর্গন্ধ : শুনতে অবাক লাগলেও, ঘটনা সত্য। মুখের স্যালিভায় রয়েছে ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ করার উপাদান।

দেহে পানির পরিমাণ কমে যাওয়ায় মুখের স্যালিভার পরিমাণ কমে যায়। তখন মুখে দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী জীবাণু তাড়াতে কাজ করতে পারে না স্যালিভা। যদি দেখেন বিশেষ কোনো কারণ ছাড়াই আপনার মুখে বাজে গন্ধ সৃষ্টি হয়েছে, তাহলে বেশি বেশি পানি খাওয়ার চেষ্টা করুন। দেখবেন সমাধান হয়ে গেছে।

দ্বিধা : হঠাৎ করেই দ্বিধায় পড়ে যাওয়া বা কোনো কিছু বুঝতে না পারা বিশেষ লক্ষণ হতে পারে। যদি সম্প্রতি খুব কম পরিমাণ পানি খেয়ে থাকেন, তো এমনটা হবে। তবে এ অবস্থা হঠাৎ করেই সৃষ্টি হয় না বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। গরম একটি দিনে ঘামে ভেজা শরীরে ঘুম থেকে ওঠার পর দেখবেন এমনটা বোধ হচ্ছে।

হঠাৎ ক্ষুধা : সঠিকভাবে কাজ করতে লিভারের দরকার পানি।

কিন্তু যখন সে তা পায় না, তখন তা মস্তিষ্ককে সংকেত পাঠায় যে জ্বালানি দরকার। কিন্তু নির্দিষ্টভাবে পানি দরকার বলে সংকেত পাঠায় না মস্তিষ্ক। তখন আপনার কাছে মনে হয়, ক্ষুধা লেগেছে। মনে হবে, অনেক ক্ষুধা লেগেছে। আসলে দরকার পানি।

কুঁচকে যাওয়া ত্বক : হাতের কোনো অংশের ত্বক টেনে ধরুন এবং ছেড়ে দিন। সাধারণত কী দেখবেন? ত্বক নিমেষেই আগের অবস্থায় ফিরে যাবে। কিন্তু যদি দেখেন ত্বক টেনে ছেড়ে দেওয়ার পর আগের অবস্থায় ফিরতে বেশ সময় লেগে যাচ্ছে, তবে বুঝতে হবে দেহে পানির অভাব দেখা দিয়েছে। টান খাওয়া ত্বক অনেক ধীরে ধীরে আগের অবস্থা ফিরে পায় পানির অভাবে। নিয়মিত পানি খান। দেখবেন, সমস্যা চলে গেছে।

ঘাম হচ্ছে না : দেহ থেকে ঘাম বের হওয়া একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। কিন্তু যদি একেবারেই ঘাম না বের হয়, তবে বুঝতে হবে পানির যথেষ্ট অভাব রয়েছে। এটা তখনই হয় যখন দেহের সামান্য পরিমাণ পানি দেহ ধরে রাখতে চায়। এগুলো বেরিয়ে গেলে বিপদ হবে। হিট স্ট্রোকের আগে এমন লক্ষণ দেখা দিতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে বেশি বেশি পানি পান করতে হবে।

সেল্ফ অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার


মন্তব্য