kalerkantho


জার্মান এমপিদের সাক্ষাৎ

সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্মিলিত লড়াইয়ের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সন্ত্রাসকে একটি বৈশ্বিক সমস্যা হিসেবে বর্ণনা করে এই সামাজিক ব্যাধির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘বিশ্ব শান্তি নিশ্চিত করতে আমাদের সম্মিলিতভাবেই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে। ’

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় জার্মানির সফররত দুই সংসদ সদস্য হ্যান্স-পিটার ইয়ুল ও থর্সটেন ফ্রেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর জাতীয় সংসদ ভবন কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী ওই আহ্বান জানান। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বর্তমান সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির পুনরুল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী তা নির্মূলে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরেন। তাঁর সরকার সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে গণসচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এ বিষয়টিতে সরাসরি জনগণের দোরগোড়ায় যাচ্ছি এবং আমাদের উদ্যোগের সঙ্গে অভিভাবক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, ধর্মীয় নেতৃবৃন্দসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। সরকার এ বিষয়ে জনগণের কাছ থেকেও আশানুরূপ সাড়া পাচ্ছে এবং জনগণ সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দূর করতে সর্বান্তকরণে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহযোগিতা করছে। ’

প্রধানমন্ত্রী চলতি মাসেই জার্মানির মিউনিখে অনুষ্ঠেয় আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সম্মেলনে তাঁর যোগদানের বিষয়টি উল্লেখ করে বলেন, বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে এ সম্মেলন অনুষ্ঠান অত্যন্ত জরুরি।

দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের উল্লেখযোগ্য চিত্র তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা দ্রুত দেশের উন্নতি ঘটাতে চাই এবং যে জন্য আমাদের বিনিয়োগ একান্তভাবে কাম্য। ’ এ সময় তিনি বাংলাদেশে আরো জার্মান বিনিয়োগ প্রত্যাশা করেন।

বৈঠকের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী জার্মানির এমপিদের বাংলাদেশে স্বাগত জানান। বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পর ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে জার্মানিই বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দিয়েছিল বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

বৈঠকে জার্মানির এমপিরা মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনকে বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে অতি গুরুত্বপূর্ণ আখ্যায়িত করে বলেন, সেখানে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের অভিজ্ঞতালব্ধ জ্ঞান বিনিময়ের সুযোগ থাকবে। তাঁরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেরও ভূয়সী প্রশংসা করেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব সুরাইয়া বেগম এবং ঢাকায় জার্মানির রাষ্ট্রদূত ড. টমাস প্রিন্জ উপস্থিত ছিলেন। সূত্র : বাসস।  


মন্তব্য