kalerkantho


‘ভালোবাসার গল্প’ লেখা প্রতিযোগিতা

গল্পে গল্পে শেষ ক্যাম্পেইন

মো. জহিরুল ইসলাম   

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



গল্পে গল্পে শেষ ক্যাম্পেইন

কালের কণ্ঠ ও রেডিও ক্যাপিটাল আয়োজিত ভালোবাসার গল্প প্রতিযোগিতায় গতকাল উত্তরা ইউনিভার্সিটিতে ক্যাম্পেইন। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিশ্বব্যাপী ভালোবাসার ভাষা এক। ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে কালের কণ্ঠ ও ক্যাপিটাল রেডিও যৌথভাবে আয়োজন করেছে ‘ভালোবাসার গল্প’ লেখা প্রতিযোগিতা। ওয়ালটনের সৌজন্যে আয়োজিত এই প্রতিযোগিতার ক্যাম্পেইন শুরু হয় গত বুধবার থেকে। গতকাল সোমবার ছিল ক্যাম্পেইনের শেষ দিন। রাজধানীর উত্তরা এলাকায় তিনটি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপ হয়েছে ভালোবাসার গল্প লেখা নিয়ে।

আফ্রিকার দেশ সোমালিয়ার শিক্ষার্থী আবদুল কাদের। তিনি উচ্চশিক্ষা নিতে বাংলাদেশে এসেছেন। পড়ছেন ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলোজিতে (আইইউবিএটি)। গতকাল সকাল ১০টার দিকে কথা হচ্ছিল আবদুল কাদেরের সঙ্গে। তিনি বলছিলেন, ‘আমার ভালোবাসার মানুষ সোমালিয়ায়। আমি তার উদ্দেশে বলতে চাই, ভালোবাসি তাকে অনেক বেশি।

ভালোবাসাই জীবন, ভালোবাসাই সব। ভালোবাসার মানুষ যেখানেই থাকুক একবার বলুন—ভালোবাসি। ’

একই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইফুদ্দিন রাকিবের যুক্তি, ‘ভালোবাসার সঠিক ব্যাখ্যা আসলে কেউ দিতে পারে না। ’ শিক্ষার্থী ফাতেমা নাওয়ারের মতে, ‘ভালোবাসা হলো একে অন্যের ভালো-মন্দের খবর রাখা, ভালোবাসার মানুষটির প্রতি সম্মানবোধ থাকা। মূলত এ বিষয়গুলো পরিবার, দেশ ও ব্যক্তি—সব ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। ’ শিক্ষর্থী রায়হানের কাছে ভালোবাসা হলো একটি সুসম্পর্ক।

এশিয়া ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের শিক্ষার্থী নিগার সুলতানার কাছে ভালোবাসা হলো, ‘আপনি যদি কোনো বিষয় নিয়ে খুব ভাবেন, তার প্রতি আপনার ভালো লাগা তৈরি হয় আর এর মাধ্যমে ভালোবাসার উত্পত্তি। ’ সুরাইয়া আক্তারে কাছে ভালোবাসা হচ্ছে, ‘পছন্দ হলে সেটা পরিবারকে বুঝিয়ে পারিবারিকভাবে শেষ পরিণতি অর্থাৎ বিয়ে পর্যন্ত যাওয়া। ’

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএর শিক্ষিকা মুকতাশা দিনা চৌধুরী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ করে বলেন, ‘ভালোবাসার সব কিছু প্রথম দেখা, প্রথম কথা, প্রথম ভালো লাগা। মোটকথা যেকোনো প্রথম তোমাদের কাছে যতটা ভালো লাগে, সেই ভালো লাগা যদি শেষ দিন পর্যন্ত একই থাকে, তবে এটাই সত্যিকার অর্থে ভালোবাসা। ’ উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাহমিনা জাহান প্রিয়া, প্রতিদিন ভালোবাসার পক্ষে। তাঁর যুক্তি—মানুষ প্রতিদিনই বারবার প্রেমে পড়ে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন এবং ইংরেজি বিভাগের চেয়ারপারসন হাসপিয়া বশিরুল্লাহ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘ভালোবাসার সংজ্ঞা বৃহৎ। ভালোবাসা সবার জন্য। আমরা মা, বাবা, ভাই, বোনকে ভালোবাসি। আবার বাসার কাজের মেয়েটিকেও ভালোবাসি। সবার নিজের ভালোবাসার গল্প ভালোবাসা থেকে দূরে থাকা মানুষগুলোকে ভালোবাসতে শেখাবে। তোমার মায়ের জন্য তাঁর পছন্দের একটি চকোলেট নিয়ে যাওয়াটাও ভালোবাসা। ’

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাহফুজ হোসেন ভূঁইয়া শিক্ষার্থীদের বলেন, ‘মানুষের ভালোবাসার কথা সবাই বলে। আমরা যদি একটু ভিন্নভাবে চিন্তা করি তাহলে দেখব, প্রাণিকুলের ভালোবাসার প্রতি যদি মানুষের টান থাকে তবে মানুষের প্রতি সত্যিকার ভালোবাসার উপলব্ধি পাওয়া সম্ভব। ’

গতকাল সকাল থেকে উত্তরার তিনটি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের ভালোবাসার গল্প শুনে, গল্প লেখা প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে উদ্বুদ্ধ করা হয় আয়োজকদের পক্ষ থেকে। ক্যাম্পেইন সহযোগী হিসেবে কাজ করেছেন কালের কণ্ঠ শুভসংঘের বন্ধুরা।

উল্লেখ্য, ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে ওয়ালটনের সৌজন্যে কালের কণ্ঠ ও ক্যাপিটাল এফএম ৯৪.৮ যৌথভাবে আয়োজন করেছে ‘ভালোবাসার গল্প প্রতিযোগিতা’। ১৮ থেকে ২৫ বছর বয়সের মধ্যে স্নাতক অথবা স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীদের থাকছে এতে অংশগ্রহণ করার সুযোগ। এক হাজার শব্দে আজকের মধ্যে ই-মেইল (valobasargolpo@kalerkantho.com)-এ পাঠানো যাবে গল্প।


মন্তব্য