kalerkantho


গুজব রটিয়ে গ্রাম লুট

পুলিশ উঠিয়ে নেওয়ার পর বাড়িতে আগুন

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পুলিশ উঠিয়ে নেওয়ার পর বাড়িতে আগুন

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জের চরদেহুন্দা গ্রামে হামলা ও লুটপাটের পর পরিস্থিতি শান্ত করতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। কিন্তু শনিবার রাতে পুলিশ চলে যাওয়ার পর এবার গ্রামটির একটি বাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে প্রতিপক্ষের লোকজন। ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িটি গ্রামের একটি মসজিদের মুয়াজ্জিন মতি মিয়ার।

চরদেহুন্দা গ্রামের লোকজন অভিযোগ করে, প্রতিপক্ষ জটারকান্দা গ্রামের লোকজন শনিবার রাতে এই আগুন দেয়। এতে বাড়িটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। এ ঘটনার পর গতকাল রবিবার আবার গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তাড়াইল থানার ওসি খোন্দকার শওকত জাহান ও করিমগঞ্জ থানার ওসি মো. জাকির রব্বানী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। র‍্যাব-১৪ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের সদস্যরাও ঘটনাস্থলে গেছেন।

এর আগে সংঘর্ষে আহত জটারকান্দা গ্রামের দুলাল মিয়া মারা গেছেন—এমন গুজব রটিয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে চরদেহুন্দা গ্রামে হামলা চালায় জটারকান্দা গ্রামের লোকজন। তারা চরদেহুন্দা গ্রামের অন্তত ২০টি বাড়ি লুটপাট করে। এ ঘটনায় পরদিন শুক্রবার থেকে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল।

শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশ উঠিয়ে নেওয়া হলে রাতে মতি মিয়ার বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।

এ পরিস্থিতিতে গতকাল রবিবার বিকেলে দুই পক্ষকে নিয়ে করিমগঞ্জ ও তাড়াইল উপজেলার দুই ওসি, জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিরা আর কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা যেন না ঘটে, সে বিষয়ে বৈঠক করেন। মসজিদের মুয়াজ্জিন আব্দুল মতিন জানান, বৃহস্পতিবার তাঁদের গ্রামে হামলা ও লুটপাটের পর ভয়ে তাঁরা পালিয়ে গিয়েছিলেন। শনিবার রাত ১০টার দিকে তাঁর বাড়িটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়।

গতকাল রবিবার দুপুরে গিয়েও দেখা যায়, পুড়িয়ে দেওয়া ঘর থেকে ধোঁয়া বের হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারটি সেই ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার করছে। আব্দুল মতিনের মেয়ে জুলেখা বেগম জানান, তাঁরা একেবারে সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছেন। ঘরে পানি খাওয়ার একটি গ্লাস পর্যন্ত নেই।

হামলা ও লুটপাটে ক্ষতিগ্রস্ত চরদেহুন্দা গ্রামের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সোহরাব হোসেন বলেন, ‘পুলিশের কাছ থেকে যে ধরনের আচরণ প্রত্যাশা করেছিলাম, তা আমি পাইনি। ’ তিনি অভিযোগ করেন, ‘এখন পর্যন্ত কোনো আসামিকে তারা ধরেনি। অথচ আসামিরা তাদের গ্রামেই রয়েছে। বিভিন্ন মাধ্যমে খবর পাঠিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজন আমাকে হুমকি দিচ্ছে। ’

ঘটনাস্থল ঘুরে দেখা গেছে, গতকাল চরদেহুন্দা গ্রামের বিভিন্ন বাড়িঘরে হামলা ও লুটপাটের আলামতগুলো যেভাবে ছিল, সেভাবে পড়ে রয়েছে। এর কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে গ্রামবাসী জানায়, পুলিশ এখনো বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করেনি। তাই ভাঙা ঘরবাড়ি ও লুটপাটের চিহ্ন তারা সরাতে পারছে না।

করিমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাকির রব্বানী কালের কণ্ঠকে জানান, হামলা ও লুটপাটের পর জড়িতরা বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে গেছে। এ কারণে তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। তবে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।

প্রসঙ্গত, করিমগঞ্জ উপজেলার দেহুন্দা ইউনিয়নের চরদেহুন্দা গ্রামের বাসিন্দা করিমগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সোহরাব হোসেনের সঙ্গে পাশের তাড়াইল উপজেলার জটারকান্দা গ্রামের সঞ্জু মিয়া, দুলাল ও ফজলুর রহমানের পূর্ববিরোধ ছিল। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার রাতে গুজব রটিয়ে তাড়াইলের দিগদাইড় ইউনিয়নের জটারকান্দা গ্রামের লোকজন, করিমগঞ্জ উপজেলার দেহুন্দা ইউনিয়নের চরদেহুন্দা গ্রামের ২০টি বাড়িতে একযোগে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়।


মন্তব্য