kalerkantho


বরিশালে মেলার পাশ থেকে নববধূর লাশ উদ্ধার

স্বামীসহ আটক ৭

বরিশাল অফিস   

৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার নরোত্তমপুর এলকায় সূর্যমণির মেলার পাশ থেকে এক নববধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার রাতে মেলার সার্কাস প্যান্ডেলের পেছনে মল্লিকবাড়ির সামনের রাস্তায় গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়।

নিহত এই নববধূর নাম দিলরুবা আক্তার। সে মেলাস্থলের পাশের বেতাল গ্রামের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী শামীমের স্ত্রী। স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির এই ছাত্রী সদর উপজেলার চন্দ্রমোহন ইউনিয়নের চন্দ্রমোহন গ্রামের মোশারেফ খানের মেয়ে। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে পুলিশ দিলরুবার স্বামীসহ সাতজনকে আটক করেছে।

বানারীপাড়া থানা সূত্রে জানা যায়, রাত সাড়ে ৯টার দিকে মেয়েটির মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে মেলার দর্শনার্থীরা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করার পর রাত ১১টার দিকে স্বজনরা এসে দিলরুবাকে শনাক্ত করে।

মোশারেফ খান জানান, এক মাস আগে তাঁর মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন বেতাল গ্রামের আলম হাওলাদারের ছেলে শামীম হাওলাদারের সঙ্গে। মেয়েজামাইয়ের চা দোকান আছে স্থানীয় উত্তরপাড় বাজারে। বিয়ে দিলেও আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়েকে স্বামীর বাড়ি পাঠানো হয়নি।

সম্প্রতি দিলরুবাকে বানারীপাড়া বেড়াতে নিয়ে যায় শামীম। সেখানেই তাঁর মেয়ে হত্যার শিকার হয়েছে।

মোশারেফ খান বলেন, শামীম কিছুদিন ধরে দিলরুবাকে সন্দেহ করছিল এবং খারাপ আচরণ করতে শুরু করে। তাঁরা বিষয়টি গুরুত্ব দেননি। ভেবেছেন ঠিক হয়ে যাবে। ’

দিলরুবার লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ তার স্বামী শামীম, শ্বশুর আলম হাওলাদার, শাশুড়ি মনোয়ার বেগম, ভগ্নিপতি আল-অমিন হাওলাদার, বোন শিল্পী, স্বামীর বন্ধু মনির ও সুমনকে আটক করে।

আল-আমিন হাওলাদার পুলিশকে জানান, শুক্রবার দুপুরে তিনি স্ত্রীকে নিয়ে শ্যালিকা দিলরুবার স্বামীর বাড়ি বেড়াতে আসেন। এশার নামাজের পর তাঁরা তিনজন সূর্যমণির মেলায় যান। এ সময় দিলরুবা তার স্বামীকে ফোন করলে শামীম জানায়, সেও মেলায় রয়েছে। কথা বলতে বলতে একপর্যায়ে দিলরুবা মেলাস্থলের পেছনে চলে যায়। এরপর তাঁরা জানতে পারেন, তাঁর লাশ পাওয়া গেছে।

আল-আমিন বলেন, শামীম সন্দেহ করত দিলরুবার সঙ্গে তার খালাতো ভাইয়ের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তিনি স্ত্রীকে নিয়ে এ বিষয়ে শামীমের সঙ্গে কথা বলতে এসেছিলেন। তবে তাঁদের সঙ্গে দিলরুবার মেলায় আসা শামীমের পছন্দ হয়নি।

বানারীপাড়া থানার ওসি জিয়াউল আহসান জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে দিলরুবাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে। তিনি বলেন, পুলিশ ধারণা করছে, শামীম পরিকল্পিতভাবে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে স্ত্রীকে হত্যা করেছে।


মন্তব্য