kalerkantho


সিরাজগঞ্জে আধিপত্যের বিরোধে আ. লীগে সংঘর্ষ

সাংবাদিকসহ গুলিবিদ্ধ ৩

সিরাজগঞ্জ ও শাহজাদপুর প্রতিনিধি   

৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



সাংবাদিকসহ গুলিবিদ্ধ ৩

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে হামলা, মারধর ও গোলাগুলির ঘটনায় একজন সাংবাদিকসহ তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। ইটপাটকেলের আঘাতে আহত হয়েছে আরো অন্তত সাতজন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের একাংশের কর্মী-সমর্থকরা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায়। অন্যদিকে সাংবাদিক আহতের ঘটনায় আলাদাভাবে স্থানীয় সাংবাদিকরা প্রতিবাদ বিক্ষোভ করেছেন।

গুলিবিদ্ধ তিনজনের মধ্যে দুজনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হলো সমকাল পত্রিকার শাহজাদপুর প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল ও স্থানীয় রংমিস্ত্রি ডুবার (১৬)। অন্যজন পথচারী। তবে তার পরিচয় জানা যায়নি।

আহতদের মধ্যে মাথা ও মুখে গুলিবিদ্ধ শিমুলকে বগুড়ায় পাঠানো হয়েছে। ডুবারকে পাঠানো হয়েছে সিরাজগঞ্জে।

স্থানীয় সাংবাদিক ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ভিপি রহিমের শ্যালককে শাহজাদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি বিজয় মাহমুদকে (৩২) বেধড়ক মারধর করে পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুর ছোট ভাই পিন্টু।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে দলের কর্মী-সমর্থক ও তাঁর মহল্লা কান্দাপাড়ার লোকজন লাঠিসোঁটা নিয়ে মণিরামপুর এলাকায় অবস্থিত পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুর বাড়িতে হামলা চালায়। মেয়রের সমর্থকরাও তাদের ওপর পাল্টা হামলা চালায়। একপর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়। এ সময় ঘটনাস্থলে কর্তব্যরত সমকাল পত্রিকার প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুলের মাথায় ও মুখে গুলি লেগে গুরুতর আহত হন। তাঁকে প্রথমে উপজেলার পোতাজিয়া হাসপাতাল ও পরে বগুড়ায় নেওয়া হয়।

খবর পেয়ে শাহজাদপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শটগানের একটি গুলির খোসা ও পৌর মেয়র হালিমুল হকের ছোট ভাইকে গ্রেপ্তার করে।

ঘটনার প্রতিবাদে ভিপি রহিমের সমর্থক ও তাদের গ্রামের লোকজন বগুড়া-নগরবাড়ী মহাসড়কের শাহজাদপুরের দিলরুবা বাস টার্ির্মনাল এলাকায় মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে। ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় সাংবাদিকরাও বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে থানায় গিয়ে অভিযুক্তদের শাস্তি দাবি করেন।

শাহজাদপুর পৌর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ভিপি রহিম জানান, দিলরুবা বাস টার্মিনাল থেকে উপজেলা সদর পর্যন্ত রাস্তার টেন্ডার হলেও দীর্ঘদিন যাবৎ ঠিকাদার সংস্কারকাজ শুরু করছেন না। লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে এ বিষয়ে সক্রিয় হওয়ায় ঠিকাদারের পক্ষের লোকজন তাঁর শ্যালক বিজয়ের ওপর ক্ষুব্ধ ছিল। এরই জের ধরে গতকাল দুপুরে শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র হালিমুল হক মিরুর ছোট ভাই পিন্টু তাঁর শ্যালককে কালীবাড়ি এলাকায় বেধড়ক মারধর করে তাঁর হাত-পা ভেঙে দিয়েছে।

শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলীমুন রাজীব এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বিজয়কে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে তাঁকে পাশের বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়।

পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরু দাবি করেন, ‘আমার ছোট ভাই পিন্টু ও ভিপি রহিমের শ্যালকের মধ্যে মারামারির কিছুক্ষণ পরই ভিপি রহিমের লোকজন লাঠিসোঁটা ও আগ্নেয়াস্ত্র হাতে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীরা গুলিবর্ষণ শুরু করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আমিও বাড়ির ভেতর থেকে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করেছি। ’

শাহজাদপুর থানার ওসি রেজাউল হক জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। আধাঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধের পর বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দেওয়া হয়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে।

 


মন্তব্য