kalerkantho


প্রান্তিক কৃষকদের দেওয়া হবে ৩৩ কোটি টাকার প্রণোদনা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



আউশ আবাদ, সবজির পোকা দমন এবং পাট ও আখ উৎপাদন বৃদ্ধি করতে প্রদর্শনীর জন্য দুই লাখের বেশি প্রান্তিক কৃষককে প্রায় ৩৩ কোটি টাকার প্রণোদনা দেওয়া হবে। প্রণোদনার অংশ হিসেবে কৃষকরা সার, বীজ, সেচ সুবিধা ও প্রদর্শনীর সরঞ্জাম পাবেন।

কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী গতকাল বুধবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ প্রণোদনা কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

কৃষিমন্ত্রী জানান, উৎপাদন বৃদ্ধিতে উফশী আউশে ৫১ জেলায় ২৭ কোটি ১০ লাখ টাকা, নেরিকা আউশে ৪০ জেলায় তিন কোটি ৯০ লাখ টাকা প্রণোদনা দেওয়া হবে। এ ছাড়া ৬৪ জেলায় কুমড়া জাতীয় সবজির মাছি পোকা দমনে, সাত জেলায় পাট ও চট্টগ্রামে আখের উৎপাদন বৃদ্ধিতে এক কোটি ৯০ লাখ টাকা কৃষি প্রণোদনা দেওয়া হবে।

উফশী আউশ আবাদে প্রত্যেক কৃষক উপকরণ বাবদ এক হাজার ৩৫৫ টাকা এবং নেরিকা আউশ চাষে এক হাজার ৯৫০ টাকা করে পাবে। আউশে প্রণোদনার কারণে ৭৬ হাজার ৭৮৯ টন চাল উৎপাদন হবে, যার আর্থিক মূল্য ২৪৫ কোটি ৫৩ লাখ টাকা।

উফশী আউশ ধানের ক্ষেত্রে এক বিঘা জমির জন্য প্রতি কৃষক পাঁচ কেজি বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি করে ডিএপি ও এমওপি সার পাবে। সেচের জন্য পাবে ৪০০ টাকা আর্থিক সহায়তা। বিঘাপ্রতি নেরিকা চাষের জন্য প্রত্যেক কৃষক ১০ কেজি বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি করে ডিএপি ও এমওপি সার পাবে। সেচের জন্য পাবে ৪০০ টাকা করে।

আগাছা দমনের জন্য পাবে ৪০০ টাকা। এ ছাড়া পাট ও আখ ফসলের প্রদর্শনী স্থাপনের জন্য এবং কুমড়া জাতীয় ফসলে ফেরোমন ফাঁদ স্থাপনের জন্য প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। কৃষকরা ফসলের ন্যায্য দাম পায় না, এমন অভিযোগ বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ফসল যেখানে উৎপাদন হয় সেখান থেকে ভোক্তার কাছে পৌঁছানোর পরিবহন খরচ আছে। যে ব্যবসায়ী পরিবহন খরচ দিয়ে পণ্যটি ভোক্তার কাছে নিয়ে আসেন, তাঁকে লাভ করতে না দিলে তিনি কেন ব্যবসা করবেন। তা ছাড়া সরকার সহায়ক শক্তি। সরকার এখানে ব্যবসা করবে না।


মন্তব্য