kalerkantho


লেভেলক্রসিংয়ের ওপর উড়াল সড়ক নির্মাণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

একনেকে ১২,৫৫১ কোটি টাকার আট প্রকল্প অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় লেভেলক্রসিংয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও নজরে এসেছে।

এ অবস্থায় তিনি সামনের দিনগুলোতে সড়ক নির্মাণ করতে গিয়ে যদি লেভেলক্রসিং পড়ে তাহলে ওই লেভেলক্রসিংয়ের ওপর উড়াল সড়ক নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তিনি এ নির্দেশ দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এতে একদিকে যেমন রেল দুর্ঘটনা কমবে অন্যদিকে তেমনি ট্রেন চলাচলও স্বাভাবিক থাকবে। সড়কের যানবাহনগুলো উড়াল সড়কের ওপর দিয়ে যাবে। ’ আগামীতে সড়কের অন্য প্রকল্পগুলোতেও যদি লেভেলক্রসিং পড়ে তবে সেখানেও উড়াল সড়ক নির্মাণের কথা বলেছেন তিনি। বৈঠকে উপস্থিত সরকারের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বৈঠক সূত্র বলছে, লেভেলক্রসিংয়ের ওপর উড়াল সড়ক নির্মাণের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী নিজেই তুলে ধরেন। গতকাল একনেক সভায় ‘নাটোর রোড হতে রাজশাহী বাইপাস পর্যন্ত সংযোগ সড়ক নির্মাণ’ শিরোনামের একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ সড়কটি নির্মাণ করতে গিয়ে দুই জায়গায় লেভেলক্রসিং পার হতে হবে। এ দুটি লেভেলক্রসিংয়ের ওপর উড়াল সড়ক নির্মাণ করতে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দেন তিনি।

যদিও মূল প্রকল্পে ওই দুই জায়গায় উড়াল সড়ক নির্মাণের কোনো পরিকল্পনা ছিল না।

সভায় প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, দেশে এরই মধ্যে অনেক সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। এখন এসব সড়ক রক্ষণাবেক্ষণের ওপর জোর দিতে হবে। সড়ক নির্মাণে একটি মাস্টারপ্ল্যান তৈরিরও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। এর বাইরে যেসব এলাকায় জোয়ার-ভাটা হয় সেসব এলাকায় সেতু তৈরি করতে গেলে সর্বোচ্চ উঁচু করে করার কথাও বলেছেন তিনি।

গতকালের সভায় স্থানীয় সরকার শক্তিশালীকরণে লোকাল গভর্ন্যান্স সাপোর্ট প্রকল্পসহ আটটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ১২ হাজার ৫৫১ কোটি টাকা। এর মধ্যে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে ৯ হাজার ১৯২ কোটি, উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে দুই হাজার ৪৮৫ কোটি এবং বাস্তবায়নকারী সংস্থার তহবিল থেকে ৮৭৪ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে।

রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এ সময় সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম, ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য জুয়েনা আজিজ, আইএমইডির সচিব ফরিদ উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য সামসুদ্দিন আজাদ চৌধুরীসহ অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘সৌদি আরব আগের চেয়ে আমাদের এখন ভালো চোখে দেখে। আরব নিউজ পত্রিকা লিখেছে, বাংলাদেশে সৌদি আরবের বিনিয়োগকারীরা ব্যাপক বিনিয়োগ করতে চায়। তারা সেকেন্ড হোম ভাবছে বাংলাদেশকে। অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরির কথা বলছে। এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব সফরের মধ্য দিয়ে। ’

একনেকে অনুমোদিত প্রকল্পগুলো হলো, ৪১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে জলবায়ু সহনশীল গ্রামীণ অবকাঠামো প্রকল্প, দুই হাজার ৬৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে খুলনা বিভাগ পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন, ৪২১ কোটি টাকা ব্যয়ে মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (এমআইএসটি), মিরপুর সেনানিবাসের অবকাঠামোগত সুবিধা সম্প্রসারণ, দুই হাজার ৮৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে অনন্যা আবাসিক এলাকার উন্নয়ন (দ্বিতীয় পর্যায়), ১৩৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নাটোর রোড হতে রাজশাহী বাইপাস পর্যন্ত সংযোগ সড়ক নির্মাণ, ২৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে বরিশাল ও সিলেট আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) এবং ৩৩৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পটুয়াখালী-পায়রা ২৩০ কেভি সঞ্চালন লাইন নির্মাণ প্রকল্প।


মন্তব্য