kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ডুমুরিয়ায় নির্যাতনের শিকার দুই স্কুল ছাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা   

২২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সম্প্রতি খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় দুই স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে একটি ঘটনায় আসামি ধরা পড়েছে।

তবে অন্য ঘটনায় থানায় অভিযোগ করা হলেও এখনো মামলা হয়নি।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ৯ অক্টোবর দুর্গাপূজার মহা অষ্টমীর দিন এক স্কুল ছাত্রী (১৫) গণধর্ষণের শিকার হয়। পূজামণ্ডপ থেকে রাতে বাড়ি ফেরার সময় আক্রান্ত হয় সে। তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় নির্যাতিত ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে মামলা করলে পুলিশ অভিযুক্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করে। তারা হলো সঞ্জয় মণ্ডল (৩০), টিকেন মণ্ডল (২৮), বাবলু মণ্ডল (২৮) ও পরিতোষ সরদার (৪৫)। তারা এখন কারাগারে রয়েছে। তবে আরো পাঁচ আসামি পলাতক।

এলাকাবাসী জানায়, নির্যাতিত ওই স্কুল ছাত্রী হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরলেও ঘর থেকে বেরোচ্ছে না। লোকলজ্জা ও আতঙ্কে সে সন্ত্রস্ত। গত বৃহস্পতিবার জড়িতদের শাস্তি দাবি করে কুলটি স্কুলের সামনে তিনটি স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা মানববন্ধন করেছে। অন্যদিকে কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কলেজ ছাত্রীর ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে গত ১৭ অক্টোবর। আহত ছাত্রী আরিফা খাতুন বর্তমানে ডুমুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

ঘটনার তিন দিন পর গত বৃহস্পতিবার থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। ছাত্রীর বাবা উপজেলার খর্ণিয়া ইউনিয়নের গোনালী গ্রামের আমজাদ হোসেন জোয়ার্দার বাদী হয়ে রাসেল জোয়ার্দারসহ চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে বলা হয়, তাঁর মেয়ে ডুমুরিয়া শহীদ স্মৃতি মহিলা মহাবিদ্যালয়ের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী আরিফা খাতুন (১৬) গত ১৭ অক্টোবর কলেজ শেষে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে নিজ বাড়িতে ফিরছিল। বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছালে এলাকার ওয়াসেক আলী জোয়ার্দারের ছেলে মো. রাসেল জোয়ার্দার ও তার সঙ্গীরা তার গতিরোধ করে কুপ্রস্তাব দেয়।


মন্তব্য