kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


১০ টাকার চাল বিতরণে অনিয়ম

৪৪ জনের ডিলারশিপ বাতিল, ২২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



অতিদরিদ্র মানুষের জন্য চালু করা সরকারের ১০ টাকা কেজি চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগে এ পর্যন্ত ৪৪ জনের ডিলারশিপ বাতিল হয়েছে। আর ২২ জনের বিরুদ্ধে ১১টি মামলা করা হয়েছে।

এখন ছয় আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয়ে নিজ দপ্তরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম এসব তথ্য জানান। চাল বিতরণ কর্মসূচিতে অনিয়মের ঘটনায় সরকার এখন পর্যন্ত কী ব্যবস্থা নিয়েছে তা জানাতেই এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে কোনো ধরনের দলীয়করণ বা অনিয়ম মেনে নেওয়া হবে না। এ কর্মসূচি চালুর পর যেখানেই অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে, সেখানেই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। অনিয়মের চিত্র তুলে ধরায় গণমাধ্যমকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি সরকার যে ব্যবস্থা নিচ্ছে সে তথ্যও তুলে ধরার আহ্বান জানান।

গত ৭ সেপ্টেম্বর কুড়িগ্রামের রৌমারীতে খাদ্যবান্ধব এ কর্মসূচির উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর দেশের অন্যান্য এলাকায়ও চালু হয় তা।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, অতিদরিদ্রদের জন্য এ কর্মসূচি চালু করেছে সরকার। দরিদ্রদের কোনো দল হয় না। তাদের বঞ্চিত করলে পরিবেশক, জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা, কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

অভিযোগ ওঠার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন—উল্লেখ করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এ কর্মসূচিকে বিতর্কিত হতে দেব না, এটিকে দলীয়করণও করব না।

কামরুল ইসলাম বলেন, ইউএনওর নেতৃত্বে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, মেম্বাররা উপকারভোগীদের তালিকা করেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ হচ্ছে, যাঁরা তালিকা তৈরি করেন তাঁরা সরকারি দলের সদস্য হন, বিএনপি বা নির্দলীয় হন—কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, নাগরিক সমাজের সদস্য, গণমাধ্যমকর্মী—সবাইকে এই কর্মসূচি নিয়ে সরকারকে সহযোগিতা জানানোর আহ্বান জানান খাদ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সবাই মিলে সহায়তা করুন, তাহলে কিছুদিনের মধ্যেই আমরা অনিয়ম দূর করতে পারব। ’

খাদ্যমন্ত্রী জানান, অনিয়মের অভিযোগে ২২ জনের বিরুদ্ধে ১১টি মামলা হয়েছে। তাদের মধ্যে কুমিল্লায় তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বিশেষ ক্ষমতা আইনে। অভিযোগের প্রমাণ পেয়ে শেরপুরের দুজন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। জামালপুরের সরিষাবাড়ী ও মেলান্দহের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে, তাঁদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে। ৪৪ জনের ডিলারশিপ বাতিল করা হয়েছে। ওজনে কারচুপিসহ বিভিন্ন অভিযোগে মোট ৯ জনকে জরিমানা করা হয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে। বগুড়ার শাজাহানপুরে কালোবাজারে চাল বিক্রির অভিযোগে তিনজনকে সাজা দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী জানান, অনিয়মের তদন্ত করতে সরকার জেলা প্রশাসকদের কাছে চিঠি দিয়েছে, তাঁরাই সব তদারকি করছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা মন্ত্রণালয় থেকে আটটি বিভাগের জন্য আটটি টিম করে দিয়েছি। কোথায় কী অনিয়ম হচ্ছে তা ধরতে তারা সারা দেশ চষে বেড়াচ্ছে। কর্মসূচি সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিভাগীয় কমিশনারদেরও আমরা চিঠি দিয়েছি। ’


মন্তব্য