kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মানবপাচারে দণ্ডিত এজেন্সিকে ওমরাহর অনুমোদন

প্রথম পর্বে ১৭৪টির তালিকা প্রকাশ

মোশতাক আহমেদ   

১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পবিত্র ওমরাহ পালনের নামে মানবপাচারের অভিযোগে বাতিল হওয়া এজেন্সিগুলোকে আবারও ওমরাহর অনুমোদন দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। প্রথম পর্বে অনুমোদন পাওয়া এজেন্সিগুলোর একটি তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছে।

এগুলোর মধ্যে হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) নেতাদের লাইসেন্স বাতিল হওয়া ও শাস্তি পাওয়া এজেন্সিও রয়েছে।

গত সোমবার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের উপসচিব এ কে এম শহীদুল্লাহ স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে চলতি বছর ওমরাহ উপলক্ষে যাত্রী পাঠানোর জন্য প্রথম পর্বে ১৭৪টি এজেন্সির তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এর মধ্যে হাব সভাপতি ইব্রাহিম বাহারের মেগাটপ ট্রাভেলস ইন্টারন্যাশনাল (প্রা.) লিমিটেড, ভাইস প্রেসিডেন্ট ফরিদ আহমেদ মজুমদারের গোল্ডেন বেঙ্গল ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, মহাসচিব শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর সনজরি ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, যুগ্ম সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন কামালের হাশেম এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, সাবেক সহসভাপতি ও বর্তমান ইসি মেম্বার আফতাব উদ্দীন চৌধুরীর মালিকানাধীন আফতাব ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরসসহ বাতিল হওয়া ও শাস্তিপ্রাপ্ত বেশ কিছু এজেন্সি রয়েছে।

প্রসঙ্গত, পবিত্র ওমরাহ পালনের নাম করে যাত্রী পাঠানোর পর তারা আর ফিরে না আসায় বাংলাদেশের জন্য ওমরাহয় যাত্রী পাঠানো বন্ধ ছিল। এভাবে ওমরাহর নামে মানবপাচারে জড়িত এজেন্সিগুলোকে তদন্ত

সাপেক্ষে শাস্তি দেওয়া হয়। বেশ কিছু এজেন্সির লাইসেন্সও বাতিল করা হয়। গত বছরের ১৮ নভেম্বর

সংবাদ সম্মেলন করে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান ওমরাহর নামে মানবপাচারের অভিযোগে শাস্তিপ্রাপ্ত এজেন্সিগুলোর তালিকা প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে তিনি জানান, ওমরাহ পালনের জন্য ১০৪টি এজেন্সির পাঠানো যাত্রীদের মধ্যে ১১ হাজার ৪৮৫ জন ফেরত আসেনি। এসব এজেন্সির বিরুদ্ধে ওঠা মানবপাচারের অভিযোগ তদন্ত করে ৯৫টি এজেন্সিকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে এসব এজেন্সির বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানান তিনি।


মন্তব্য