kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ঝালকাঠিতে দুই বিচারক হত্যা

খুলনায় জেএমবি নেতা আসাদুলের ফাঁসি আজ

খুলনা অফিস   

১৬ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



প্রায় এক যুগ পর আজ রবিবার রাতে খুলনা কেন্দ্রীয় কারাগারে জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) নেতা আসাদুল ইসলাম ওরফে আরিফের ফাঁসি কার্যকর হচ্ছে। ঝালকাঠিতে দুই বিচারক হত্যা মামলায় তাঁর ফাঁসির দণ্ড কার্যকর হবে।

এই মামলায় এর আগে জেএমবির শীর্ষ দুই নেতাসহ ছয়জনের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। জেএমবি নেতা আসাদুল ইসলামের বাড়ি বরগুনা সদরে। ২০০৮ সাল থেকে খুলনা কারাগারে রয়েছেন তিনি। খুলনা জেলা প্রশাসন আসাদুলের ফাঁসি কার্যকর করা হবে বলে নিশ্চিত করেছে। সে জন্য খুলনা কারাগার এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে বলেও জানা গেছে। এর আগে সর্বশেষ ২০০৪ সালের ১০ মে খুলনা কারাগারে কুখ্যাত খুনি এরশাদ শিকদারের ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

খুলনা কেন্দ্রীয় কারাগার সূত্রে জানা যায়, ২০০৫ সালের ১৪ নভেম্বর ঝালকাঠির জ্যেষ্ঠ সহকারী জজ সোহেল আহম্মেদ ও জগন্নাথ পাঁড়ের গাড়িতে বোমা হামলা চালায় জেএমবি। এতে দুজনই নিহত হন। আহত হন হামলাকারী ইফতেখার হোসেন মামুন, জেলা জজ আদালতের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী আবদুল মান্নান ও দুধ বিক্রেতা বাদশা মিয়া। ২০০৬ সালের ২৯ মে এ হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। ঝালকাঠির অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ রেজা তারিক আহম্মেদ জেএমবি প্রধান শায়খ আব্দুর রহমান ও দ্বিতীয় প্রধান সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলাভাইসহ সাত নেতার ফাঁসির আদেশ দেন। ২০০৭ সালের ২৯ মার্চ শায়খ আব্দুর রহমান, সিদ্দিকুল ইসলাম, শায়খ আব্দুর রহমানের ভাই আতাউর রহমান সানি, জামাতা আবদুল আউয়াল, হামলাকারী ইফতেখার হোসেন মামুন ও খালেদ সাইফুল্লাহ ওরফে ফারুকের ফাঁসি কার্যকর হয়।


মন্তব্য