kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


যুবলীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ৭৮

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ছয় জেলায় বিভিন্ন অভিযোগে ৭৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে এক যুবলীগ নেতাও আছেন।

কালের কণ্ঠ’র প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

নাটোর : নলডাঙ্গা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক তৌহিদুর রহমান লিটনকে গতকাল গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে গত ৩ সেপ্টেম্বর বিপ্র বেলঘড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) হামলা চালিয়ে ৫ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য বাবুল হোসেন ও ইউপি সচিব হাবিবুর রহমানকে পিটিয়ে কয়েক শ ফেয়ার প্রাইসের কার্ড ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে করা মামলায় ওয়ারেন্ট আছে। আরো তিনটি মামলায় নলডাঙ্গা থানায় ওয়ারেন্টসহ তাঁর বিরুদ্ধে অন্তত ১৫টি মামলা আছে বলে থানার ওসি মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন।

এদিকে গুরুদাসপুরে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে শহীদ চৌধুরী নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার নাড়িবাড়ী থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর বাড়ি একই উপজেলার লক্ষ্মীকোল পালপাড়া গ্রামে। গুরুদাসপুর থানার ওসি দিলিপ কুমার দাস জানান, এ ঘটনায় শহীদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে নারানপুর গ্রামের চাকরিপ্রার্থী মাসুমা আক্তারের চাচা খোদাবক্স থানায় একটি মামলা করেছেন।

হবিগঞ্জ : বাহুবল উপজেলার শাহপুর গ্রামের বেশ কয়েকটি মামলার পলাতক আসামি মদন মিয়া ওরফে সুজন (৩২) এবং হবিগঞ্জ শহরের উমেদনগর এলাকার কাদির ও দরিয়াপুর গ্রামের সামছুকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেপ্তার এই তিনজনই ডাকাত বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ছাড়া পুলিশের নিয়মিত অভিযানে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ২৪ পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরার আট থানার বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৩৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে নাশকতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকে গতকাল সকাল পর্যন্ত এ অভিযান চালানো হয়। সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শক মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মণিরামপুর (যশোর) : বৃহস্পতিবার রাতে মণিরামপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আট আসামিকে গ্রেপ্তার করে। তারা হলো আবদুল জব্বার, শংকর রায়, ফারুক হোসেন, জাহাঙ্গীর আলম, তরিকুল ইসলাম, কওসার আলী, আবু আবদুল্লাহ ও রাসেল হোসেন। তাদের বাড়ি উপজেলার কদমবাড়িয়া, আলীপুর, জয়পুর, কাটাখালী ও পাড়দিয়া গ্রামে। মণিরামপুর থানার ওসি বিপ্লব কুমার নাথ জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের নামে বিভিন্ন মামলা রয়েছে। তারা ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি।

চুয়াডাঙ্গা : ছিনতাইয়ে জড়িত সন্দেহে আলমডাঙ্গা উপজেলার নওদা বন্ডবিল গ্রামের ইজিবাইকচালক মুকুল হোসেনকে বৃহস্পতিবার রাতে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল দুপুরে তাঁকে ছিনতাই মামলায় আদালতে সোপর্দ করা হয়। বুধবার সন্ধ্যায় আলমডাঙ্গার শ্রীনগর মাঠে ইজিবাইকযাত্রী রামদিয়া গ্রামের পুলিশের সাবেক এসআই মতিয়ার রহমানের (মৃত) স্ত্রী ফেরদৌসী খাতুন ও তাঁর ভাই তরিকুল আলমের কাছ থেকে স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোনসেট ও টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ আনা হয়েছে মুকুলের বিরুদ্ধে।

সিরাজগঞ্জ : ‘আমানত শাহ লুঙ্গি’র নকল লেবেল লাগিয়ে ব্যবসা করার অভিযোগে বেলকুচি উপজেলার তামাই বাজার এলাকার দুজনকে বৃহস্পতিবার রাতে আটক করেছে সিরাজগঞ্জের সিআইডি পুলিশ। আটককৃতরা হলো সিরাজগঞ্জের তামাই কালিবাড়ী উত্তরপাড়ার মো. সেলিম ও শেরপুর জেলার নয়ানিবাজার এলাকার দুলাল চন্দ্র। এ ছাড়া বিক্রির সময় প্রায় এক হাজার লুঙ্গি ও বিপুল পরিমাণ লেবেল জব্দ করা হয় তাদের কাছ থেকে। রাতেই আমানত শাহ লুঙ্গির মালিকপক্ষের প্রতিনিধি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা করেন।


মন্তব্য