kalerkantho


রাজশাহী জেলা ছাত্রদল

নতুন কমিটির ১৪ নেতার ১৩ জনই অছাত্র!

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



রাজশাহী জেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটিতে ১৪ নেতার মধ্যে ১৩ জনই অছাত্র বলে জানা গেছে। তাঁদের মধ্যে কেউ চাকরিজীবী, কেউ আইনজীবী আবার কেউ ব্যবসায়ী।

গত বৃহস্পতিবার রাতে কেন্দ্র থেকে রাজশাহী জেলা ছাত্রদলের নতুন এই কমিটি ঘোষণা করা হয়।

কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান আকরাম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে নতুন এই কমিটির বিষয়টি জানানো হয়।

গতকাল শুক্রবার এই কমিটি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে জেলা ছাত্রদলের কয়েকজন নেতাকর্মী। তাদের দাবি, ১৪ সদস্যের এ কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক থেকে শুরু করে অন্তত ১৩ নেতাই অছাত্র।

তারা দাবি করে, সভাপতি রেজাউল করিম টুটুলের ছাত্রত্ব গেছে কয়েক বছর আগেই। তিনি এখন রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের প্যাথলজি বিভাগে চাকরি করেন। প্যারামেডিক্যাল থেকে পাস করা টুটুল কখনো ছাত্রদলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না বলেও দাবি করে অনেকেই। এ ছাড়া নগরীর লক্ষ্মীপুরে টুটুলের মালিকানাধীন হলিক্রিসেন্ট নামের একটি প্যাথলজি সেন্টারও আছে।

কমিটির সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনিরও ছাত্রত্ব নেই।

একাদশ শ্রেণির পর আর পড়াশোনা করেননি তিনি। কমিটিতে ঠাঁই পাওয়া জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি শাহরিয়ার আমিন বিপু রাজশাহী নগরীর বাংলাদেশ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষক, সহসভাপতি আবুল বাসার রাজশাহী নগরে ‘মিষ্টিবাড়ি’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক, সহসভাপতি নেসার রহমান সমুন একজন ব্যবসায়ী, তিনি পুঠিয়ায় ব্যবসা করেন। যুগ্ম সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন লাবিব একজন আইনজীবী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়সাল সরকার ডিকো ব্যবসা করেন। রোমানিয়া বিস্কুট কম্পানির ডিলার তিনি।

এর বাইরে ওই কমিটির আরো অন্তত ছয়জন রয়েছে যাঁদের কেউ কৃষিকাজ করেন, কেউ ব্যবসায়ী আবার কেউ বেকার। তবে ছাত্রত্ব থাকা একমাত্র নেতা হলেন কমিটির ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রহমান জিতু।

জিতু অভিযোগ করে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কেন্দ্র থেকে ছাত্রদলের নতুন কমিটি চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই কমিটির ১৩ সদস্যেরই ছাত্রত্ব নেই। ’ তিনি জানান, কমিটির সদস্যদের কেউ চাকরিজীবী, কেউ ব্যবসায়ী, আবার কেউ লেখাপড়া বাদ দিয়ে বেকার ঘুরে বেড়াচ্ছেন। অথচ এসব অছাত্র দিয়েই রাজশাহীর মতো একটি জেলার ছাত্রদলের কমিটি করা হয়েছে। জিতু দাবি করেন, ‘কমিটির অনেকেই কখনো ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। ’

রাজশাহী জেলা ছাত্রদলের সাবেক কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুর রহমান শরীফ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘একেবারে পকেট কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। অর্থের বিনিময়ে কেন্দ্রে বসে এই কমিটি চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। ’

রাজশাহী জেলা ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা এই কমিটি প্রত্যাখ্যান করেছে দাবি করে শরীফ বলেন, ‘আমাদের দাবি নতুন করে কমিটি দেওয়া হোক। যারা ত্যাগী ও নির্যাতিত তাদের মূল্যায়ন করে কমিটিতে পদ দেওয়া হোক। ’

বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য নতুন কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম টুটুলের সঙ্গে গতকাল সন্ধ্যায় বারবার ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাঁকে পাওয়া যায়নি।

সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি বলেন, ‘যারা ছাত্রদল নেতা তাদের নিয়েই কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। পদবঞ্চিত নেতারা হয়তো ক্ষোভে নানা অভিযোগ করছেন। তবে দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করা হবে। ’


মন্তব্য