kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রাজস্ব আদায়ে সফলতা

বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্টকে ভিডিও দেখানো হবে

ফারজানা লাবনী   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিমকে রাজস্ব আদায়ে সরকারের সফলতার ভিডিও দেখাবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। রাজস্ব আদায়-সংক্রান্ত প্রতিবেদনও দেওয়া হবে তাঁকে।

একই সঙ্গে এনবিআরের বিভিন্ন কার্যক্রমে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা দেওয়ার জন্য কিমের কাছে অনুরোধ জানানো হবে। এ-সংক্রান্ত প্রস্তাব তৈরি করা হয়েছে। কোন কোন কাজে কী ধরনের কারিগরি ও কী পরিমাণে আর্থিক সহায়তা চাওয়া হবে সে বিষয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের অনুমোদন নিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান। রাজস্ব আদায়ে সফলতার ভিডিও অর্থমন্ত্রীকে দেখানো হয়েছে। সূত্র জানায়, এনবিআর সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেবে অর্থপাচার রোধে আর্থিক ও করিগরি সহায়তা পাওয়ার বিষয়ে। এ ছাড়া সমুদ্র, বিমান ও স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি পণ্য যাচাইয়ে আধুনিক স্ক্যানিং পদ্ধতির ব্যবহার, অনলাইনে ভ্যাট আদায়, সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স সেল (সিআইসি), শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর, ভ্যাট গোয়েন্দা ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের আধুনিকায়ন, ট্রান্সফার প্রাইজিং সেলের কাজে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার এবং ফরেনসিক ল্যাবের কার্যক্রম জোরদারে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা চাওয়া হবে। এনবিআরের কেন্দ্রীয় তথ্যভাণ্ডারের অটোমেশনে বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতা প্রয়োজন বলেও প্রস্তাবে উল্লেখ থাকছে। নতুন আয়কর ও শুল্ক আইন কার্যকর করায় বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতার গুরুত্বও তুলে ধরা হবে।

সফলতার ভিডিওতে রাজস্ব আদায়ে মৌলিক কী পরিবর্তন আনা হয়েছে এর বর্ণনা রয়েছে। গত কয়েক বছরে আয়কর মেলায় করদাতার সংখ্যা বৃদ্ধি এবং সেবার তুলনা করা হয়েছে। কর আদায় পদ্ধতি, এনবিআরের দপ্তরগুলোর আধুনিকায়ন, কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের চিত্রও রয়েছে। অনলাইন ভ্যাট প্রকল্পের কার্যক্রমের অগ্রগতির সংক্ষিপ্ত বিবরণ রয়েছে। শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের বিভিন্ন অভিযানের চিত্র দেখানো হবে বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্টকে। এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘রাজস্ব আদায়ে সরকারের বড় ধরনের সাফল্য রয়েছে। এর কথা দেশে-বিদেশে সব জায়গায় জানাতে চাই। ’

জিম ইয়ং কিমকে যে প্রতিবেদন দেওয়া হবে তাতে অর্থপাচারে জড়িত প্রতিষ্ঠান ও অসাধু ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করার কথা থাকছে। বন্ড সুবিধার অপব্যবহার করে অর্থপাচারে জড়িত প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল ও তাদের বিরুদ্ধে এনবিআরের মামলার বিষয় থাকছে। অর্থপাচারে জড়িত প্রতিষ্ঠান এবং তাদের চেয়ারম্যান ও পরিচালকদের হিসাব জব্দ করার কথা থাকছে।


মন্তব্য