kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পাসপোর্টের আবেদন জমা নিতে ঢাকায় হচ্ছে ১৮ সেন্টার

ওমর ফারুক   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পাসপোর্ট অফিসে না গিয়েও আবেদন জমা দিতে পারবে ঢাকাবাসী। এ জন্য ঢাকাকে পূর্ব-পশ্চিম দুই ভাগে ভাগ করে ১৮টি ‘পাসপোর্ট আবেদন প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র’ করা হচ্ছে।

এর মধ্যে থাকছে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য ও তাঁদের পরিবারের জন্য এবং সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য একটি করে সেন্টার। ইতিমধ্যে এসব কেন্দ্র স্থাপনের অনুমতি দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এখন কেন্দ্র স্থাপনের জন্য ভবন ভাড়া, প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম বসানোর প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

পাসপোর্ট অফিসের এক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে জানান, প্রতিদিন পাসপোর্টের জন্য হাজার হাজার মানুষ অফিসগুলোতে ভিড় করে। পাসপোর্টের ফরম জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে লম্বা লাইন দেখা যায়। এত লোকের চাপ সামাল দেওয়া কষ্টকর। এ কারণে অনেক দিন ধরেই পাসপোর্ট আবেদনের জন্য আলাদা সেন্টার করা যায় কি না তা নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল। পাসপোর্ট-সংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন বৈঠকেও এসব সমস্যা নিয়ে আলোচনার পর সমাধান হিসেবে আবেদন করার আরো সেন্টারের বিষয়ে একমত হওয়া যায়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও এসব কেন্দ্র স্থাপনের অনুমতি দিয়েছে। এখন এই সেন্টারগুলো করার জন্য সুবিধাজনক স্থানে ভবন ভাড়া নেওয়া এবং কম্পিউটারসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম বসানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। শিগগির সেন্টারগুলো থেকে আবেদন জমা ও কেন্দ্রে পাঠানোর কাজ শুরু করা যাবে।

সূত্র জানায়, ঢাকার আগারগাঁও ও যাত্রাবাড়ী এলাকায় দুটি পাসপোর্ট অফিস ছিল। গত ২৫ সেপ্টেম্বর উত্তরায় আরো একটি পাসপোর্ট অফিসের কার্যক্রম শুরু হয়। এর পরও পাসপোর্ট অফিসগুলো আবেদনকারীদের চাপ সামলে উঠতে না পারার কারণে নতুন এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দিন দিন পাসপোর্ট আবেদনকারীর সংখ্যা বাড়ছে। চাপ সামলাতে না পারার কারণে পাসপোর্ট প্রার্থীদের ভোগান্তির সীমা নেই। আর এর সুযোগ নিচ্ছে কিছু দালাল। দালালদের দাপটে সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ। এসব দিক বিবেচনা করেই ১৮টি সেন্টার করা হচ্ছে।

জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে এই সেন্টারগুলো থেকে অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন পাঠানো হবে পাসপোর্ট অফিসে। এর সফলতার ওপর ভিত্তি করে পরবর্তী সময়ে ছবি তোলা থেকে শুরু করে পাসপোর্ট বিতরণের কার্যক্রমটিও এই সেন্টারগুলো থেকে করার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সিকিউরিটি অ্যান্ড ইমিগ্রেশন উইং) মোস্তফা কামাল উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা আশা করছি আগামী দুই মাসের মধ্যে এই সেন্টারগুলোর কার্যক্রম শুরু করা যাবে। অ্যাপ্লিকেশন প্রসেসিং সেন্টারগুলো চালু হয়ে গেলে দালালের খপ্পরে পড়তে হবে না সাধারণ মানুষকে। ’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সেন্টারগুলোতে পাসপোর্ট অফিসের লোকজনই বসবেন। পাসপোর্টের নির্ধারিত ফি ছাড়া আবেদন করার জন্য কাউকে কোনো টাকা দিতে হবে না। ’

গত ২৯ সেপ্টেম্বর পাসপোর্টের আবেদন প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র স্থাপনের অনুমতি দিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বাহিরাগমন অধিশাখা-৪ থেকে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। তাতে উল্লেখ করা হয়, জনগণকে দ্রুত পাসপোর্ট সেবা দেওয়ার জন্য ঢাকা পূর্বাঞ্চল, পশ্চিমাঞ্চল, ঢাকা সেনানিবাস ও সচিবালয় আবেদন প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র স্থাপনের অনুমোদন দেওয়া হলো। এর মধ্যে ঢাকা পূর্বাঞ্চলের আবেদনকারীদের জন্য মতিঝিল, পল্টন, রামপুরা, কেরানীগঞ্জ, কামরাঙ্গীরচর, খিলগাঁও, চকবাজার, দোহার ও বংশালে এই কেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে। ঢাকা পশ্চিমাঞ্চলে আদাবর, সাভার, ধামরাই, শাহআলী, তুরাগ, নিউ মার্কেট ও হাজারীবাগে এই কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। এ ছাড়া সশস্ত্র বাহিনীতে কর্মরত ও অবসরপ্রাপ্ত সদস্য এবং তাঁদের পরিবারের জন্য ঢাকা সেনানিবাসে পাসপোর্ট আবেদনের কেন্দ্র করা হচ্ছে। বাংলাদেশ সচিবালয়ে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য সচিবালয়ে করা হচ্ছে একটি কেন্দ্র।


মন্তব্য