kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ওয়াশিংটনে অর্থমন্ত্রী

নীতি পরিবর্তনে বিশ্বব্যাংকে বাংলাদেশ এখন গুরুত্ব পাচ্ছে

নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ‘বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ তাদের নীতির পরিবর্তন এনেছে। দুটি সংস্থা এখন উন্নয়নের জন্য কাজ করছে, প্রবৃদ্ধির জন্য কাজ করছে।

আইএমএফকে আগে নীতিনির্ধারণী ও নিয়ন্ত্রকের ভূমিকায় দেখা গেছে। এত দিন তারা উন্নত দেশগুলোর মতামতকে বেশি গুরুত্ব দিত। এখন তারা বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল ছোট দেশগুলোর মতামতকেও গুরুত্ব দিচ্ছে। কারণ পৃথিবীর মোট জনগোষ্ঠীর বেশির ভাগ এই দেশগুলোতে বাস করছে। বিশ্বব্যাংক এখন যেকোনো প্রকল্প নেওয়ার ক্ষেত্রে আমাদের অগ্রাধিকারকে গুরুত্ব দেয়। ’ গত রবিবার ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বার্ষিক সম্মেলনের শেষ দিনে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের এবারের সম্মেলন থেকে অর্জন প্রসঙ্গে আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘বিশ্বের কম দেশ আছে, যেখানে টানা ছয়-সাত বছর ৬ শতাংশের বেশি হারে প্রবৃদ্ধি হয়েছে। আমরা সেটা করে দেখিয়েছি। এখন ৭ শতাংশের বেশি করছি। এসব কারণেই বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের সব বৈঠকে এখন আমাদের গুরুত্ব দেওয়া হয়। দারিদ্র্য বিমোচনে আমরা যে সাফল্য দেখিয়েছি, যে উন্নয়ন করেছি, তা সরেজমিনে দেখতেই ঢাকায় যাচ্ছেন বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট। সব কিছু মিলিয়ে বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরই এবারের সম্মেলনে আমাদের বড় পাওয়া বলে মনে করি। ’

মুহিত বলেন, বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের ঋণ সহায়তা আগের চেয়ে বাড়বে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে ১ দশমিক ১৮ বিলিয়ন ডলার সহায়তা দেবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। এর মধ্যে ছাড় করেছে ১ দশমিক ১৬ বিলিয়ন ডলার। এর আগে কোনো বছরই ১ বিলিয়ন ডলার ছাড় করেনি বিশ্বব্যাংক।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে তিন দিনের এই সম্মেলনে ১৫ জনের প্রতিনিধিদল নিয়ে যোগ দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বৈঠক করেছেন বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্টসহ মাল্টিল্যাটারাল ইনভেস্টমেন্ট গ্যারান্টি এজেন্সি (মিগার) কর্মকর্তাদের সঙ্গে। যোগ দিয়েছেন জলবায়ু পরিবর্তনসহ নানা ফোরামের বৈঠকে।


মন্তব্য